টিডিএন বাংলা ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী মোদী ২০১৪ লোকসভা ভোটের আগে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল ২কোটি ভারতীয়কে রোজগার দেবে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর সেই প্রতিশ্রুতি পূরন হইনি উপরন্তু বিভিন্ন রিপোর্ট প্রমান করেছে ভারতে বেকারত্বের সংখ্যা বেড়েছে। আর সেই সব এর মাশুল দিতে হচ্ছে লাখ লাখ শিক্ষিত যুবকদের। রাজধানী নয়াদিল্লির একটি শান্ত আবাসিক কোণে ২১বছর বয়সী  যুবক  সাগর কুমার ডিম বিক্রি করছে। নয়ডার একটি ওপেন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাণিজ্য বিভাগের স্নাতক পাঠরত সাগর কুমার।
সাগর ছোট্ট ভাইবোনদের স্কুল ফি এবং অসুস্থ বাবার কিডনি ডায়ালাইসিসের জন্য রাস্তার পাশে খাদ্য বিক্রেতা হিসাবে কাজ করছেন। তিনি একটি সরকারি চাকরীর জন্য অধৈর্য হয়ে পড়েছেন।
সাগর জানায়,’আমি রাতে অধ্যয়ন করি, বাকি সময় আমি এই খাদ্য সামগ্রী বিক্রি করি। প্রতিদিন  ৫০০টাকা আয় করি। যদি রাস্তার পাশে ডিম বিক্রি করতে হয় তবে কমার্সে স্নাতক ডিগ্রী কী কাজে লাগাবো?’
বিহারের মাধেপুরা থেকে দিল্লি আসা সাগর বলেন, কলেজের ডিগ্রী বাধ্যতামূলক নয়, এমন রেলওয়ে সহ বিভিন্ন সরকারি চাকরির জন্য আবেদন করেছিল।সে অনুরোধ করে,যে কেউই  পরবর্তী সরকার গঠন করুক,আমাদের সাহায্য করতে হবে।
সাগর আরও বলেন,আমাদের চাকরি দরকার। যদি আপনি তা না ব্যবস্থা করে দিতে পারেন তবে আমাদের উপার্জন করতে সাহায্য করুন। আমি এন্টারপ্রেনরস এর জন্য ঋণ পেতে চেষ্টা করেছি, কিন্তু এটিও একটি দুঃস্বপ্ন। তাই এখানে কোন পরিবর্তন নেই। কাজগুলিও পাওয়া যায় না এবং এটি সহজ নয় একটি ছোট ব্যবসার জন্য ব্যাংক ঋণ পেতে।
মধ্য দিল্লির তুগলকাবাদ বস্তিতে ২৪ বছর বয়সী সীমা একটি পার্ট টাইম রান্নার কাজ করে।তবে অফিস সেক্রেটারি হিসাবে কাজ পেতে আশা করেন।
তিনি বলেন,” আমার টাইপিং গতি খুব ভাল। আমার পরিবার উত্তরপ্রদেশের বদায়ূ থেকে দিল্লিতে আসেন, যেখানে আমি একটি সরকারি অফিসে ক্লার্ক এর চাকরি পেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমার কোন ভাগ্য নেই।এখানে নারী হিসাবে জব খুঁজতে গিয়ে নিরাপত্তারও উদ্বেগ রয়েছে।” আল জাজিরা