টিডিএন বাংলা ডেস্ক : বাবরি মসজিদ সংক্রান্ত মামলা বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন রয়েছে। উত্তরপ্রদেশে মসনদও পরিবর্তন হয়েছে। চলছে বিজেপি শাসিত সরকার। আর এরই সুযোগে সুপ্রিম কোর্টকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ (ভিএইচপি) অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণের জন্য প্রস্তুতি শুরু করে দিল।

রাম মন্দির নির্মাণের জন্য সোমবার লাল পাথর ভর্তি দুটি ট্রাক অযোধ্যায় এসে় পৌঁছল। জানা গিয়েছে, আগামী কয়েক দিনের মধ্যে আরও একশত পাথর ভর্তি ট্রাক অযোধ্যায়

আনা হতে পারে। ভিএইচপি-র সদর দফতরে কর্সেবক পুরম শহরে ট্রাকগুলি খালি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২০১৫ সালে  ভিএইচপির প্রয়াত নেতা অশোক সিংঘলের উপস্থিতিতে ভিএইচপি-র উচ্চস্তরের বৈঠকে, ভিএইচপি রাম মন্দির নির্মাণের জন্য সারা দেশ থেকে পাথর সংগ্রহের কর্মসূচির ঘোষণা করে।

সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে ভিএইচপি নেতা ত্রিলকী নাথ পান্ডে বলেন, ‘আজ রামমন্দিরের জন্য দুটি ট্রাকের পাথর রাজস্থানের ভরতপুর থেকে এসেছে। প্রস্তাবিত রাম মন্দিরে চূড়ান্ত আকৃতি দেওয়ার জন্য আমাদের আরও শত ট্রাকেরও বেশি পাথর প্রয়োজন।’

একই উদ্দেশ্যে ২০১৫ সালে পাথরের দুই ট্রাক অযোধ্যাতে আনা হয়েছিল। কিন্তু উত্তর প্রদেশের তখনকার সমাজবাদী পার্টি সরকার বিষয়টি বিচারাধীন বলে সেই সময় অযোধ্যায় আরও পাথর আনার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। আর এখন উত্তরপ্রদেশে চলছে বিজেপির সরকার। আর এ প্রসঙ্গে ত্রিলকী নাথ পান্ডে বলেন, ‘এখন রাজ্যে বিজেপি সরকার রয়েছে ফলে রামমন্দির নির্মাণের জন্য কোন সমস্যা নেই।’

লখনউ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য রূপ রেখা বর্মা বলেন, ‘যেহেতু অযোধ্যা বিষয়টি সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন, তাই এই ধরনের কার্যকলাপ অবৈধ এবং দেশবিরোধী। এই ধরনের ঘটনা সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টি করে এবং শান্তি ও আইন-শৃংখলা বিঘ্নিত করে।তাই রামমন্দিরের নামে পাথরের আমদানী অযোধ্যায় নিষিদ্ধ করা উচিত, এবং এটি রাজ্য সরকারের দায়িত্ব।’