টিডিএন বাংলা ডেস্ক: করোনা মোকাবিলায় দেশজুড়ে লকডাউন করা হয়েছে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বেরোতে বারণ করা হয়েছে। নিষেধ করা হয়েছে বড় জমায়েতের উপর। কিন্তু সেই সব কথা থোড়ায় কেয়ার। তাঁর ফলও হাতেনাতে গুনতে হল তামিলনাড়ুতে একটি পাইকারি বাজারে আগত সমস্ত মানুষকে। ওই পাইকারি বাজারের সবাইকে টেস্ট করার পর ২৬০০ জনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। ফলে প্রচণ্ড উদ্বেগে স্থানীয় প্রশাসনিক আধিকারিকরা। আপাতত ওই বাজারকে করোনার হটস্পট ঘোষণা করে কড়া নিয়ন্ত্রণ জারি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। এমনটাই খবরে প্রকাশ করেছে ইংরেজি অনলাইন পোর্টাল এনডিটিভি ও ইন্ডিয়ায় এক্সপ্রেস।

চেন্নাই শহরের অদূরে কোয়ামবেদু তামিলনাড়ুর বৃহত্তম পাইকারি সবজির বাজারের মধ্যে অন্যতম। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের ভিড় জমে বাজারে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়ানোর পর অন্যান্য এলাকার মতো এই বাজারেও জারি হয়েছিল সতর্কতা। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কেনাবেচা করার কথা বলেছিল প্রশাসন। কিন্তু সে সব উপেক্ষা করেই দিনের পর দিন চলেছে এই বাজার। ফলে সংক্রমণের সম্ভাবনা তীব্র হয়। তাই বাজারে আসা সমস্ত মানুষের করোনার পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সেই টেস্টের রিপোর্ট আসার পরেই মাথায় হাত পড়েছে প্রশাসনের।

স্থানীয় প্রশাসনিক আধিকারিক ও চিকিৎসক জে রাধাকৃষ্ণান জানিয়েছেন, ‘বাজারের দোকানদার–খরিদ্দার এবং তাঁদের সংস্পর্শে আসা সবার করোনা টেস্ট করা হয়েছিল। তাতে ২৬০০ জনের রিপোর্ট পজিটিভ। সব মিলিয়ে টেস্ট করা হয়েছিল প্রায় ২ লক্ষ ৬০ হাজার জনের।’

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যায় তামিলনাড়ু দেশের মধ্যে বর্তমানে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। গত সপ্তাহেই দিল্লিকে টপকে আক্রান্তের সংখ্যায় উপরে উঠে এসেছে। তার মধ্যে কোয়ামবেদু বাজারে ২৬০০ জনের সংক্রমণ সেই পরিসংখ্যানে বড় ভূমিকা নিয়েছে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।