টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ধর্ষণ-অপহরণে অভিযুক্ত স্ব-ঘোষিত ধর্মগুরু নিত্যানন্দকে আশ্রয় দিয়েছে ইকুয়েডর সরকার। কিছুদিন আগে এমনই দাবি করেছিল ভারত, এর পরেই নিত্যানন্দের গতিবিধি সম্পর্কে নজর রাখার জন্য সমস্ত বিদেশ মন্ত্রককে জানানো হয়। এর পরেই ইকুয়েডরের দূতাবাস এক বিবৃতিতে জানায় যে তারা নিত্যানন্দের আশ্রয় দেয়নি। সমস্ত দাবিকে নস্যাৎ করে দিয়ে ইকুয়েডর সরকার জানিয়ে দিল দক্ষিণ আমেরিকার কোনও দেশে জমি কেনার ক্ষেত্রে কোনও সহায়তা করা হয়নি নিত্যানন্দকে। ইকুয়েডর থেকে এমন জবাব পেয়েই শুক্রবার নিত্যানন্দের পাসপোর্ট বাতিল করল ভারত।

ইকুয়েডর থেকে তাঁর অনুগামীদের দ্বারা ক্রয় করা একটি দ্বীপে নিত্যানানন্দ ‘হিন্দু স্বদেশ’ কৈলাসা তৈরির ঘোষণা করেছিলেন। কর্ণাটকে তাঁর বিরুদ্ধে দায়ের করা একটি ধর্ষণ মামলা থেকে নিজেকে বাঁচাতে পাসপোর্ট ছাড়াই ভারত ছেড়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন নিত্যানন্দ।

বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র রবীশ কুমার নিত্যানন্দের ‘হিন্দুভূমি কৈলাস’ ঘোষণার বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, নিত্যানন্দের বিরুদ্ধে মামলাগুলির বিষয়ে মন্ত্রককে জানানো হলে তারা তার পাসপোর্ট বাতিল করে দেয়। তিনি নতুন পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেছিলেন বলেও বিদেশমন্ত্রকের তরফে অস্বীকার করা হয়েছে।

আহমেদাবাদে তাঁর আশ্রম থেকে দুই মহিলা নিখোঁজ হওয়ার পরে গত মাসে নিত্যানন্দের বিরুদ্ধে একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছিল। যোগিনী সর্বজ্ঞপীঠম নামে তাঁর আশ্রম পরিচালনার জন্য অনুগামীদের অনুদান সংগ্রহ করতে তিনি শিশুদের অপহরণ এবং অন্যায়ভাবে বন্দি করে রাখতেন বলে অভিযোগ।