টিডিএন বাংলা ডেস্ক: কিছুদিন আগেই কলকাতার এনআরএস হাসপাতালে ডাক্তার কে পিটানোর ঘটনার স্মৃতি এখনও টাটকা। প্রতিবাদে রাজ‍্য জুড়ে ধর্মঘট করেছিল জুনিয়র ডাক্তাররা। সেই ঘনটার পরে আবার ডাক্তার কে পিটিয়ে খুনের ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছে অসম। চা বাগানের দু’জন চিকিৎসক ইতিমধ্যেই ইস্তফা দিয়েছেন। এমার্জেন্সি খোলা থাকলেও, মঙ্গলবার বাকি পরিষেবা বন্ধ ছিল।

গত ৩১ ডিসেম্বর অসমের জোরহাটে টিয়ক চা বাগানের ৭৩ বছরে প্রবীণ চিকিৎসক দেবেন দত্তকে পিটিয়ে মারা হয়। ঘটনার প্রতিবাদে ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোশিয়েসনের অসম শাখা ও অসম ফার্মাসিস্ট সংগঠন মঙ্গলবার চিকিৎসা পরিষেবা ধর্মঘটের ডাক দেয়।

রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় রাস্তায় নামেন চিকিৎসকরা। গণ ইস্তফার হুমকিও দেন। ২০০৫ সালেই অবসর নিয়েছিলেন টিয়ক চা বাগানের চিকিৎসক দেবেন দত্ত। কিন্তু মন পড়েছিল সেই টিয়কেই। তাই বিনা বেতনেই চা শ্রমিকদের চিকিৎসা করতেন। এমন একটা মানুষকে এভাবে খুন হতে হবে, তা কেউই ভাবতেই পারেননি।

চিকিৎসকদের নিরাপত্তা চেয়ে অ্যাসোশিয়েশন অফ সার্জেনস অফ ইন্ডিয়া প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি পাঠিয়েছে। হাসপাতালে সিসিটিভি বসানো বাধ্যতামূলক করার দাবিও তুলেছেন। চিকিৎসককে খুনের ঘটনায় ৩৬ জনকে আটক করা হয়েছে।

ভবিষ্যতে যাঁতে আর কেউ এমন ঘটনার সম্মুখীন না হন, তাই জনসচেতনতা বাড়ানোয় জোর দেওয়ার আবেদন চিকিৎসকদের।