টিডিএন বাংলা ডেস্ক : যখন মেয়েটিকে পুলিশ উদ্ধার করে, তখনও তার শরীরে আগুন জ্বলছিল। গণধর্ষণের পর কোনো প্রমাণ না রাখতেই এভাবে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে তাকে। ঝাড়খণ্ডের পাকুর জেলায় বুধবার এক নারীকে জ্বলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, গণধর্ষণের পর হত্যা করতে তার শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছিল। ঝাড়খণ্ডের রাজধানী রাঁচি থেকে ৩৭০ কিলোমিটার দূরে সিমালদাভ গ্রামের অধিবাসীরা প্রথম ওই নারীর জ্বলন্ত শরীর পড়ে থাকতে দেখেন। এর পর তারা পুলিশের কাছে খবর পৌঁছান।

উপবিভাগী পুলিশ কর্মকর্তা শ্রাবণ কুমার বলেন, ধর্ষণের প্রমাণ নস্যাৎ করতেই তাকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে। তিনি বলেন, তাকে জীবন্ত দগ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে কিনা, ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনের পর তা জানা যাবে।

শ্রাবণ কুমার জানান, মেয়েটার শরীরের ওপরের অংশ পুরোপুরি দগ্ধ হয়ে গেছে। সে জিন্স ও টপ পরা ছিল। পাশেই আরেকটি কাপড়ের অংশ পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, মেয়েটিকে অন্য কোনো গ্রাম থেকে এখানে এনে হত্যা করা হয়।