টিডিএন বাংলা ডেস্ক: রাজ্যে মারণ থাবা বসিয়েছে ঘূর্ণিঝড় আমফান। মৃত্যু হয়েছে ৭২ জন মানুষের। পরে তা বেড়ে হয়েছে ৮০। গাছপালা, ঘরবাড়ি ভেঙে চুরমার। চাষের জমির ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি। হিসেবটা প্রায় ১ লাখ কোটির। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ডাকে সাড়া দিয়ে শুক্রবার বেলা ১১টা নাগাদ বাংলায় এলেন প্রধানমন্ত্রী। হেলিকপ্টারে করে আকাশপথে আমফান–বিপর্যয় পরিস্থিতি পরিদর্শন করলেন মোদি। এই ঘটনার উল্লেখ করে মোদি সরকারের সমালোচনা করল কর্নাটকের প্রদেশ কংগ্রেস। ‘‌পরের বছর বাংলায় বিধানসভা নির্বাচন, তাই এবার তিনি বাংলার বিধ্বস্ত চেহারা পরিদর্শনে গেলেন। নয়ত, ব্যাপক ধস ও বন্যায় ভেসে গিয়েছিল কর্নাটকের বহু এলাকা। তখন তো এলেন না তিনি দেখতে।’ বাংলা পরিদর্শনের প্রসঙ্গে মন্তব্য করল‌ কর্নাটকের প্রদেশ কংগ্রেস।

একটি টুইটে তারা লিখেছে, ‘‌বাংলার এই ব্যাপক ক্ষতিতে তাদের পাশে রয়েছি আমরা। কিন্তু নরেন্দ্র মোদির দ্বিচারিতার বিরোধিতা করছি। প্রধানমন্ত্রী বাংলার বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শন করতে সেখানে গেলেন। কিন্তু কর্নাটকে যখন ধস ও বন্যা হয়েছিল, তখন তো একবারও সেখানে আসেননি তিনি। বাংলায় পরের বছর নির্বাচন রয়েছে ঠিকই, কিন্তু এখানেও মানুষ কষ্টে আছে।’

উল্লেখ্য, গত বছর আগস্ট মাসে কর্নাটকে ভয়াবহ বন্যা হয়। একইসঙ্গে ধসও। ২২টি জেলার ১০৩টি তালুকের ২,৭৯৮টি গ্রাম ভেসে গিয়েছিল বন্যায়। প্রায় সাত লক্ষ মানুষকে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। ৯১জন মানুষ সেবার প্রাণ হারিয়েছিলেন। ৩,৪০০টি গবাদি পশুর মৃত্যু হয়েছিল। ত্রাণ পাঠাতে দেরি করায় বিরোধী কংগ্রেস সমালোচনা করায় কেন্দ্র রাজ্যকে এক হাজার ২০০ কোটি টাকার একটি অন্তর্বর্তী ত্রাণ মুক্তি দিয়েছিল। যেখানে বন্যায় ক্ষতি হয়েছিল প্রায় ৩৫,১৬০.৮১ কোটি টাকার।