তিয়াষা গুপ্ত, টিডিএন বাংলা : ‘সরি, নো কমেন্ট।’ লন্ডনের দৈনিকের সাংবাদিক মিক ব্রাউনের একের পর এক চোখা চোখা প্রশ্নের সামনে খানিকটা বিব্রত ও অপ্রস্তুত নীরব মোদীকে এভাবেই প্রতিক্রয়া জানাতে দেখা গেছে। তিনি বহাল তবিয়েতে লন্ডনের রাস্তায় ফুরফুরে মেজাজে ঘুরছেন। তবে মেক ওভার বদলেছেন। এই ভিডিও সামনে আসার পর নরেন্দ্র মোদী সরকারের অস্বস্তি যে বাড়বে তা বলাই যায়। তাহলে এখন মোদী-ই কি মোদীর মাথাব্যথার কারণ?

সরকারের বিড়ম্বনার কারণ কী-
পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক জালিয়াতিতে প্রধান অভিযুক্ত নীরব মোদীকে নিয়ে আগে কম নাজেহাল হননি নরেন্দ্র মোদী। এবার তাঁর মাথাব্যথা আরো বাড়তে পারে। ইন্টারপোলের রেড কর্নার নোটিস জারি করার পর ব্রিটেন সরকার নিশ্চিত করেছে যে, নীর মোদী সেদেশেই আছে। এর ভিত্তিতে সিবিআই ও ইডি বিদেশ মন্ত্রকের মাধ্যমে প্রত্যর্পণের আবেদন পেশ করে। গতকাল নীরব মোদীকে লন্ডনের রাস্তায় দেখা যাওয়ার পর বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্রদাবি করে তারা বিষয়টি জানে। প্রত্যর্পণের অনুরোধ পাঠানো হয়েছে। এখন থেরেসা মে সরকারের জবাবের অপেক্ষা। এদিকে বিকেলেই এই খবর সামনে আসে, ভারতের প্রত্যর্পণের অনুরোধ বিবেচনার জন্য আদালতে পাঠিয়েছে থেরেসা মে সরকার। এদিকে ২০১৮এর অগাস্টে বিদেশ মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী ভি কে সিং সংসদে জানান, নীরব মোদীকে হাতে পেতে নয়াদিল্লি কূটনৈতিক চাপ বহাল রেখেছে। সামনেই লোকসভা নির্বাচন। বিরোধীরা যে এই ভিডিও-কে হাতিয়ার করবে তা বলাই যায়। কূটনৈতিক ক্ষেত্রে সরকারের ব্যর্থতা নিয়েও প্রশ্ন তুলতে পারে তারা। তাহলে কি সরকার নীরব মোদীকে হাতে পেতে থেরেসা মে সরকারের ওপর কোনো চাপ সৃষ্টি করতে পারছে না। ইন্টারপোলের রেড কর্নার নোটিস সত্ত্বেও কেন তাঁকে গ্রেফতার করে ভারতে আনা হচ্ছে না? প্রশ্ন তুলতে পারে বিরোধীরা।

পুলওয়ামা হামলা ও বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইকের পর নীরব মোদী খবরের গুরুত্বের দিক দিয়ে পেছনের সারিতে চলে গিয়েছিল। এই অবস্থায় গতকালের পর আবার শিরোণামে নীরব মোদী। কংগ্রেস ইতিমধ্যেই আক্রমণ করেছে এনিয়ে। ফের যে তারা এনিয়ে নরেন্দ্র মোদীকে চেপে ধরবে তা বলাই যায়।

কী পরবর্তী পদক্ষেপ-
ইডি ও সিবিআই জানিয়েছে এব্যাপারে তাদের কিছু করার নেই। তবে বিদেশমন্ত্রক নতুন করে প্রত্যর্পণের আবেদন করতে পারে। এদিকে থেরেসা মে সরকার ২ দিন আগেই ইডিকে জানিয়েছে নয়াদিল্লির আবদেন বিবেচনার জন্য বিষয়টি এখন লন্ডনের আদালতে। ফলে আদালত কী রায় দেয়, তার ওপর নির্ভর করবে পরবর্তী পদক্ষেপ।