টিডিএন বাংলা ডেস্ক : দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের নিখোঁজ ছাত্র নাজিব আহমেদ নিখোঁজ হওয়ার প্রায় এক বছর পেরিয়ে গেল। তারপরেও নাজিবের কোনও সন্ধান দিতে পারেনি পুলিশ কিংবা সিবিআই। তারই প্রতিবাদে ও অবিলম্বে নাজিবকে খুঁজে বের করার দাবিতে শুক্রবার কয়েকশো ছাত্র-ছাত্রী সিবিআই-এর সদর দফতরের সামনে বিক্ষোভ দেখাল। সমাবেশে নাজিবের মা বলেন, ‘আমার ছেলের বিরুদ্ধে যারা চক্রান্ত করেছে তাদের আমি শাস্তি চাইনা। তাদের জীবন নষ্ট করতে চাইনা। আমাকে আমার ছেলে ফিরিয়ে দিন। আমি ওকে আর পড়াবোনা। দিল্লি থেকে নিয়ে চলে যাবো।’


এই বিক্ষোভ সমাবেশে যে সব ছাত্র-ছাত্রী অংশ নিয়েছিল, তাদের বেশীরভাগই ছিল জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় ও জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ার। ছাত্র-ছাত্রীরা স্লোগান দিতে দিতে সিবিআই-এর সদর দফতর অভিমুখে এগিয়ে যেতে থাকে। তাদের হাতে ছিল বিভিন্ন স্লোগাম সংবলিত পোস্টার। ‘উই আর নাজিব’, ‘নাজিব কো ঢুন্ডকে লাও’ ইত্যাদি স্লোগানে প্রতিবাদীরা মুখরিত করে তোলে এলাকা। এরপর বিক্ষোভাকারীরা সিবিআই দফতর অভিমুখে পুলিশের ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা করলে পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয়।
উল্লেখ্য, গত বছরের ১৫ অক্টোবর রাতে জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজির ছাত্র নাজিব আহিমেদ (২৭) নিখোঁজ হন। জেএনইউ-এর মাহি/মান্ডাবি হস্টেলের ১০৬ নং ঘরে থাকতেন নাজিব। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছিল, নাজিবের সঙ্গে বিজেপির ছাত্র শাখা এবিভিপি’র একদল ছাত্রের সঙ্গে বচসা বাধে। তারপর পরিষদের সমর্থকেরা নাজিবকে মারধোর করে। এই ঘটনার পর ওইদিন রাত থেকেই নাজিব নিখোঁজ হয়। তারপর নাজিবের সন্ধান না পেয়ে জেএনইউ পড়ুয়ারা সরব হয়। কিন্তু কয়েক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও পুলিশ নাজিবকে খুঁজে বের করতে না পারায়, নাজিবের মা ফাতিমা নাফিস দিল্লি সরকারের কাছে আর্জি জানান। ইতিমধ্যে নাজিবকে খুঁজে বের করার দাবিতে উত্তাল হয়ে ওঠে জেএনইউ চত্বর। নাজিবকে খুঁজে বের করার দাবিতে পথে নামেন তার মা ফাতিমা নাফিস।

যন্তরমন্তর সহ দিল্লি জুড়ে বিভিন্ন প্রতিবাদ সভা হয়। দিল্লি পুলিশের প্রায় ৬০০ জনের দল স্নিপার ডগ সহ জেএনইউ ক্যাম্পাসে জোর তল্লাশি চালালেও নাজিবের কিনারা পায়নি। এরপর তারা নাজিবের সন্ধান দিতে পারলে পুরস্কারের টাকা ৫০ হাজার থেকে ক্রমান্বয়ে বাড়িয়ে ১০ লাখ করে। তবে বদায়ুতে নাজিবের বাড়িতে তল্লাশী চলাকালীন তার মা ফাতেমাকে হয়রানির শিকার হতে হয় বলে অভিযোগ ওঠে দিল্লি পুলিশের বিরুদ্ধে। নাজিব নিখোঁজের বিষয়টি নিয়ে অবশেষে দিল্লি হাইকোর্টে মামলা হয়। পরে দিল্লি হাইকোর্ট গত ১৬ মে এক রায়ে সিবিআই তদন্তের আদেশ দেয়। তারপরও ২৬ সেপ্টেম্বর সিবিআইকে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।
নাজিব নিখোঁজের এক বছর পেরিয়ে গেলেও পুলিশ অথবা সিবিআই কেউই তার কোনও খোঁজ দিতে পারেনি। বিজেপির ছাত্র শাখার হাতে নিগৃহিত হওয়ার পর নাজিব আজও অধরা থেকে গেল।