টিডিএন বাংলা ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিমানের ধাঁচেই তৈরি হচ্ছে মোদির জন্য নতুন বিমান। যা নিরাপত্তার চাদরে মোড়া থাকবে। এর জন্য খরচ হবে ১৯ কোটি ডলার অর্থাৎ ভারতীয় টাকায় প্রায় ১,৩৩০ কোটি টাকা। আর এই নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুলছেন, এখনই এই বিপুল খরচের সত্যিই প্রয়োজন ছিল কি?

শুধুমাত্র ভারতের রাষ্ট্রপতি, উপরাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর সফরের জন্য একজোড়া বিশেষ বিমান আপাতত তৈরি হচ্ছে মার্কিন বিমান নির্মাতা সংস্থা বোয়িংয়ের ডালাসের কারখানায়। তা দিল্লির হাতে আসার কথা ২০২০ সালের জুন-জুলাই নাগাদ। ওই বোয়িং-৭৭৭ বিমানে থাকবে এসপিএস এবং এলএআইআরসিএম প্রযুক্তি। যা আকাশে আচমকা ক্ষেপণাস্ত্র হানা থেকে সুরক্ষা দেবে এই ‘ভিভিআইপি’ বিমানকে। এই প্রযুক্তিতে রেডার জ্যাম হয়ে যাওয়ায় চট করে বিমানের টিকি খুঁজে পাবে না মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রও। উত্তাপ মেপে আছড়ে পড়তে চাওয়া ক্ষেপণাস্ত্রকে বোকা বানাতেও নাকি এই প্রযুক্তি পটু।

ভারতের নতুন দু’টি ‘ভিভিআইপি’ বিমানের নির্মাণ ও ওড়ার খরচ কেমন হতে পারে, তা কিন্তু এখনও অজানা। রাষ্ট্রপতি কিংবা প্রধানমন্ত্রীর জীবনের সামান্যতম ঝুঁকি অবশ্যই বরদাস্ত করার মতো নয়। কিন্তু মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিমানের বিপুল খরচ দেখে অনেকের প্রশ্ন, ভারতের নতুন বিমানে ভিভিআইপি-সফরের খরচ আগের তুলনায় অনেক বেড়ে যাবে না তো? বিশেষত যেখানে কিছু দিন আগেও তথ্যের অধিকার আইনে করা প্রশ্নে দেখা গিয়েছিল, দেনার দায়ে ধুঁকতে থাকা এয়ার ইন্ডিয়ার কাছে কেন্দ্রের বকেয়ার অঙ্ক ১,১৪৬ কোটি টাকা।

‘ট্রাম্পের ঘরে যে ধন আছে’, এ বার তা থাকবে দিল্লির দরবারেও। কিন্তু কত দামে, প্রশ্ন সেখানেই।