টিডিএন বাংলা ডেস্ক : দীর্ঘ নাটকের অবসান, অবশেষে জয় হল সত্য ও ভালবাসার। যে বিয়ে নিয়ে লাগাতার কয়েকমাস উত্তাল ছিল দেশ, সেই হাদিয়া-সাফিনের বিয়ের সঙ্গে জঙ্গী যোগ নেই বলে সাফ জানিয়ে দিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ)। আদালতের কথায়, তাঁদের বিয়ে হয়েছে স্বেচ্ছায় এবং একে অপরকে ভালবেসে।


আকিলা অশোকন ওরফে হাদিয়া আর সাফিন জাহানের ভালবাসা ও বিয়ে নিয়ে কেরল জুড়ে কম বিতর্ক হয়নি। ২০১৬ সালে বাড়ির অমতে বিয়ে করেন কেরলের বাসিন্দা আকিলা অশোকন। বিয়ের পর ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে আকিলা অশোকন নাম নেন হাদিয়া।

মেডিক্যাল পড়ুয়া হাদিয়া যেহেতু ইসলাম ধর্ম গ্রহন করে সাফিন জাহানকে বিয়ে করেছিলেন, তাই এটাকে লাভ জিহাদ বলে প্রচার চালিয়েছিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, বজরং দল সহ উগ্র হিন্দুত্ববাদী সংগঠন। তারা সাফিনকে আইএস জঙ্গি সংযোগ আছে বলে অভিযোগ তোলে।

হাদিয়ার বাবা অভিযোগ জানান তার মেয়েকে জঙ্গিদের কাছে পাচার করার চক্রান্ত করেছেন সাফিন। তাই এনআইএ তদন্ত দাবি করেন। মামলা হয় কেরল হাইকোর্টে। কেরল হাইকোর্ট হাদিয়া আর সাফিনের বিয়ে নাকচ করে দিয়েছিল। তার বিরুদ্ধে হাদিয়া আর সাফিন সুপ্রিমকোর্টে যান। সুপ্রিম কোর্ট জানায় দুই প্রাপ্ত বয়স্ক বিয়ে করলে কোর্ট হস্তক্ষেপ করতে পারে না।

অপরদিকে তদন্ত শুরু করে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ। অবশেষে সব জল্পনার ইতি ঘটিয়ে নিয়ে এনআইএ জানিয়ে দিল, হাদিয়া আর সাফিন জাহানের বিয়ের মধ্যে কোনো জিহাদি সংযোগ নেই, পুরোটাই ভালবাসার বিষয়। ফলে হাফ ছেড়ে বাঁচলেন হাদিয়া ও সাফিন।