টিডিএন বাংলা ডেস্ক: দিল্লির নিজামুদ্দিন থেকে রাজ্যে যারা এসেছেন তাদের মধ্যে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ পাওয়া যায়নি। সেখান থেকে আসা ২৬ জন, সঙ্গে সহযাত্রী ও পারিপার্শ্বিক মিলিয়ে মোট ৭২ জনের রক্ত পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে কেউ সংক্রমিত নন। বৃহস্পতিবার এক ভিডিও বার্তায় এ কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। তিনি বলেন, প্রত্যেকের দুই দিন বাদেই পুনরায় পরীক্ষা করা হবে। বিষয়টি পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়ার জন্যই এই সিদ্ধান্ত। পাশাপাশি আসামের সঙ্গে যে সীমান্ত রয়েছে পুরোপুরি সিল করে দেওয়া হয়েছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন যেহেতু রাজ্যের পার্শ্ববর্তী জেলা করিমগঞ্জে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ রয়েছে, তাই সেখান থেকে মানুষ আসতে চাইবে। এই সুবিধা যাতে একেবারেই না থাকে, সেজন্য কড়াকড়িভাবে সীমান্ত বন্ধ করে রাখা হয়েছে। শুধুমাত্র পণ্যবাহী গাড়ি ছাড়া অন্য কিছুই আসবেনা। তাও পণ্যবাহী গাড়িগুলোকে পুরোপুরি যাচাই করেই ঢুকতে দেওয়া হবে। মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব বলেন, যারা নিয়ম মানবে না তাদের বিরদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লকুমার দেব এদিন হিন্দু, মুসলিম, খিস্টান, জৈন সহ সব ধরনের ধর্মীয় গুরুদের প্রতি আহ্বান জানান যে, তারা যেন নিজস্ব অনুগামীদের প্রতি সংক্রমণের বিরুদ্ধে সচেতনতামূলক বার্তা দেন। স্যোসাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে এর ব্যাপক সাড়া পাওয়া যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যবাসীর উদ্দেশে আহ্বান জানান, তারা যেন লকডাউন শেষ হবার পর সরকারের কী করণীয় থাকবে, এ বিষয়ে নিজের মতো করে মতামত প্রদান করেন। এর মধ্য থেকে ১০০ টি গুরুত্বপূর্ণ মতামত গ্রহণ করে রাজ্যের উন্নয়নে কাজে লাগানো হবে। সিএমওতে মেইল করে বা বিভিন্ন সরকারি আধিকারিকদের মাধ্যমেও রাজ্যবাসী মতামত তুলে ধরতে পারবেন বলে উল্লেখ করেন মুখ্যমন্ত্রী। এর মাধ্যমে আগামী দিনে কীভাবে রাজ্য লোকসান থেকে বেরিয়ে আসবে, সেই দিশা পাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লকুমার দেব বলেন, এই সময়ের মধ্যে মানুষের জীবন শৈলীতে দারুণ পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচেছ। আগে যেখানে জিবি হাসপাতালে প্রতিদিন দেড় হাজারের মতো লোক আসতো, এখনতা কমে দাঁড়িয়েছে ৫০০-তে। কারণ সবাই নিজের জায়গায় থেকে কীভাবে নিজেকে সুস্থ রাখতে পারবে সেই কৌশল রপ্ত করতে পারছে। এদিন তিনি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি রাজ্যকে করোনা মুক্ত রাখার লড়াইয়ে সবাইকে বাড়িতে থেকেই সরকারকে সাহায্য করার জন্য ফের আহ্বান জানান। (সৌজন্য- গতি দৈনিক)