ছবি ইন্টারনেট

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : নরেন্দ্র মোদির স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হতে আর বেশি দেরি নেই। মোদি আর প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন না। ধুবড়ির ধর্মশালায় চৈদ্যঘাটে মঙ্গলবার বিকেলে এক বিশাল নির্বাচনী জনসভায় একথা বলেন ধুবড়ির সাংসদ এআইইউডিএফ সুপ্রিমো বদরুদ্দিন আজমাল। তিনি বলেন, ‘এই ভোট সেমিফাইনাল’। এই জনসভায় বদরুদ্দিন আজমল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও রাজ্যের মন্ত্রী ডক্টর হেমন্তবিশ্ব শর্মাী ক্ষুরধার সমালোচনা করেন। এআইইউডিএফ নেতা বলেন, ‘নিজেকে চা বিক্রি করা পরিবারের সন্তান বলে দাবি করা নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর ১০ লক্ষ টাকা দামের স্যুট পরিধান করেন। দেশের ধনী শ্রেণীর হয়ে কাজ করে যাওয়া প্রধানমন্ত্রী বিমুদ্রাকরণ এর মাধ্যমে দেশের গরীব জনগণের আর্থিক অবস্থা কাহিল করে ফেলেছেন। তাই মোদীর যাদু এখন আর চলবে না।’

রাজ্যের মন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মাকে আক্রমন করে আজমল বলেন, সংখ্যালঘু জনগণের বিরুদ্ধে হিমন্তের শুরু করা কুটিল রাজনীতি কখনো সফল হবে না। তিনি বলেন এনআরসি-তে বিবাহিত মহিলাদের নাম কর্তনের যে কুটিল রাজনীতি করা হয়েছিল এআইইউডিএফ তা প্রতিহত করেছে। তিনি বলেন তার দল অসমে বাংলাদেশি থাকাটা সহ্য করবে না। কিন্তু বাংলাদেশির নামে কোন স্বদেশীকে হয়রানি করা হলে তা মেনে নেওয়া হবে না বলে বদরুদ্দিন আজমল হুঁশিয়ার করে দেন। এমনকি এই নির্বাচনী জনসমাবেশ এআইইউডিএফ নেতার ভাষণের সময় ‘বাংলাদেশি গো ব্যাক’ ধ্বনি দিচ্ছিলেন এবং সেই আওয়াজে সঙ্গে সঙ্গেই উপস্থিত জনতাও সমস্বরে শ্লোগান দিতে শুরু করেন। মঙ্গলবারের এই নির্বাচনী জনসভায় কংগ্রেসকে তুলোধানা করে আজমল বলেন, কংগ্রেস হল এআইইউডিএফ এর  চিরশত্রু। কংগ্রেস সংখ্যালঘু জনগণের ভিখিরি বানিয়েছে, তাই কংগ্রেসকে বিদায় দিতে হবে।’তিনি বলেন, রাজ্যের কংগ্রেসের ১৫ বছরের কার্যকালে কোন উন্নতি হয়নি। তাই কংগ্রেসকে ভোট না দেয়ার জন্য তিনি ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানান। আজমল বলেন,২০১৯- এর লোকসভা নির্বাচনের আগে এই পঞ্চায়েত নির্বাচন হয়ে উঠেছে সেমিফাইনালে বিপুল ভোটে জয়ী করার জন্য আজমাল জনগণের প্রতি আহ্বান জানান। হেলিকপ্টারে আজমল এখানে নির্বাচনী প্রচার চালাতে আসেন।

এই বিশাল জনসভায় ধুবড়ির দলীয় বিধায়ক নজরুল হক বক্তব্য পেশ করেন। এছাড়াও আজমল ধুবড়ির ফলিমারী এবং আয়রনজংলায় সভা করেন। এই সভায় আজমাল আনন্দনগর-বাঙ্গালীপাড়া এবং চিড়াকুটি- টিলাপাড়া জেলা পরিষদের প্রার্থীদের বিপুল ভোটে জয়ী করার আহ্বান জানান।সভায় দলের সাধারণ সম্পাদক ও পশ্চিম বিলাসীপাড়ার বিধায়ক হাফেজ বশির আহমেদ কাশিমিও ভাষণ দেন।