টিডিএন বাংলা ডেস্ক : বেকারদের পরীক্ষায় বসার আবেদন মূল‍্যের টাকা থেকেই ভারতীয় রেল আয় করেছে ৪২৭ কোটি টাকা। রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল বুধবার ফের ২ লাখ ৩২ হাজার বেকারদের কর্মসংস্থানের সুযোগের কথা ঘোষণা করেছেন। কিন্তু এর থেকেও অবাক করে দেওয়া খবর শুনে আপনি আসল সত্যের কাছাকাছি পৌঁছাতে পারবেন। গত বছরের চাকরির পরীক্ষায় রেলওয়ে বেকারদের কাছ থেকে প্রায় চারশো কোটি টাকা উপার্জন করেছে। গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে যখন রেল প্রায় সওয়া লক্ষ শূন্যপদে নিয়োগের ঘোষণা করে তখন প্রায় ২ কোটি ৩৭ লাখ প্রার্থী আবেদন জমা দেন। সম্প্রতি আরটিআই-এর উত্তরে জানা গিয়েছে যে এই পরীক্ষার জন্য আবেদন মূল্য হিসেবে রেল প্রায় ৯০০ কোটি টাকাও রোজগার করেছে।

ভোপালের আরটিআই কর্মী ডাঃ প্রকাশ অগ্রবাল বলেন যে, রেল স্বীকার করে নিয়েছে যে আবেদনের টাকা হিসেবে ১ লক্ষ ২৭ হাজার প্রার্থীর থেকে ৯০০ কোটি টাকা উপার্জন হয়েছে। এর মধ্য থেকেই পরীক্ষায় উপস্থিত হতে না পারা প্রার্থীদের টাকাও অবশ্য ফেরত দিয়েছে রেল।

আসলে রেল পরীক্ষার আবেদনের টাকার দু’টি বিভাগ রেখেছিল। সাধারণ এবং সংরক্ষিত বিভাগ। সাধারণ শ্রেণির প্রার্থীদের থেকে ৫০০ টাকা নেওয়া হয়, যার মধ্য থেকে যারা পরীক্ষাতে বসতে পারেননি তাঁদের ৪০০ টাকা করে ফেরত দেওয়া হয়। অন্যদিকে সংরক্ষিত প্রার্থীদের জন্য ২৫০ টাকা করে আবেদনের মূল্য নেওয়া হয় এবং পরীক্ষায় অনুপস্থিতদের এই পুরো টাকাই তাঁদের অ্যাকাউন্টে রেল পাঠিয়ে দেবে বলে জানায়।

রেলওয়ে বোর্ডের প্রাক্তন সদস্য সুবোধ জৈন জানান যে, পরীক্ষায় আবেদন মূল্য এই কারণেই নেওয়া হয় যাতে পরীক্ষার আয়োজনে যে খরচ হবে তা উঠে আসবে এবং অসিরিয়াস প্রার্থীরা যাতে আবেদন না করে। পরীক্ষার আবেদন মূল্য ফেরত দেওয়ার পরেও ৮৮৭ কোটি টাকার থেকে রেলের মোট রোজগার হয়েছে ৪২৭ কোটি টাকা। ২ কোটি ৩৭ লক্ষ প্রার্থী আবেদন করেছেন। এর মধ্যেও সাধারণ ও সংরক্ষিত শ্রেণির মোট ৮৩ লাখ ৮৮ হাজার প্রার্থী পরীক্ষা দিতেই আসেননি না। তাই এঁদের পুরো টাকাই রেলের অ্যাকাউন্টে গিয়েছে। রেল সূত্র অনুযায়ী, পরীক্ষা না দেওয়া প্রার্থীদের মধ্যে প্রায় ৫০,৩২,৮০০, অর্থাৎ ৬০ শতাংশই সাধারণ শ্রেণির যাঁদের থেকে রেল ৫০০ টাকা করে নিয়েছে। সুতরাং এই বিভাগ থেকে আয় হয়েছে ২৫১ কোটি ৬৪ লাখ টাকা।

এদিকে অনুপস্থিত থাকা প্রায় ৩৩,৫৫,২০০ জন সংরক্ষিত বিভাগের প্রার্থীদের থেকেও প্রথমে ২৫০ টাকা নেওয়া হয়। তাহলে রেলের অ্যাকাউন্টে ৮৩ কোটি ৮৮ লক্ষ টাকা আসে। ফর্ম পূরণের পরেও পরীক্ষা দিতে আসেনি এমন প্রার্থীদের কাছ থেকে রেলওয়ে ৩৩৫ কোটি ৫২ লক্ষ টাকা রোজগার করেছে।

রেল সূত্রের খবর, পরীক্ষায় উপস্থিত ছিলেন মোট ১ কোটি ৫৩ লাখ প্রার্থী। এখন, যদি ৬০% প্রার্থী সাধারণ বিভাগের হন, যাঁদের থেকে নেওয়া ৫০০ টাকার মধ্যে ৪০০ টাকা ফেরত দেওয়ার পরেও রেলের কাছে প্রার্থী পিছু ১০০ টাকা করে থাকে, তাহলে রোজগার হয়েছে ৯১ কোটি ৮০ লক্ষ টাকা। উপস্থিত ও অনুপস্থিতি মিলিয়ে রেলের রোজগার হয়েছে মোট ৪২৭ কোটি ৩২ লাখ টাকা।