ছবি : ইন্টারনেট

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : আজ দেশজুড়ে পালিত হচ্ছে আজাদ হিন্দ সরকারের ৭৫ বছর পূর্তি। প্রথা ভেঙে একই বছরে দ্বিতীয় বার লালকেল্লায় মহা সাড়ম্বরে পতাকা তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। নেতাজি বড় বালাই। বিশেষ করে ভোটের মুখে তো বটেই। সেই কারণে অতীতের যাবতীয় ঐতিহ্যকে পিছনে ফেলে লালকেল্লায় দ্বিতীয়বারের মতো জাতীয় পতাকা তুললেন মোদী। হঠাৎ করে বিজেপির এহেন নেতাজী প্রেম কেন?ইতিহাস বলছে, আরএসএস পিছন থেকে ছুরি মেরেছিল আজাদ হিন্দ ফৌজ ও নেতাজির স্বাধীনতা আন্দোলনকে। ১৯৪১ সালে সাভারকার সরাসরি বলেন যে, যুদ্ধ যখন দোরগোড়ায় এসে হাজির হয়েছে তখন হিন্দুদের তাকে সুযোগ হিসেবে নিতে হবে। ব্রিটিশ বাহিনীর সব উইংয়েরই ব্যাপকভাবে নাম লেখাতে হবে। শুধু ভাষণ নয়, কাজেও ঝাঁপিয়ে পড়েন সাভারকার।পরবর্তী কয়েক বছর ধরে রীতিমত রিক্রুটমেন্ট ক্যাম্প সংগঠিত করে ব্রিটিশ বাহিনীতে হিন্দুদের নিয়োগ করতে থাকেন, যারা দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ধরে এগিয়ে আসা আজাদ হিন্দ বাহিনীকে আটকাবে। এই রিক্রুটমেন্টের জন্য এমনকি একটি বোর্ডও গঠন করে খেলে আরএসএস ও হিন্দু মহাসভা। যে বোর্ড ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগে কাজ করবে। সাভারকারের এই উদ্যোগ আজাদ হিন্দ বাহিনীকে বিধ্বস্ত করতে ব্রিটিশদের অত্যন্ত সহায়ক হয় এবং সাভার করার রিক্রুট করা হিন্দু সেবকরা উত্তর-পূর্বাঞ্চলে আজাদ হিন্দ বাহিনীর বহু সেনাকে হত্যা করে।

এত কিছুর পরও আরএসএস, হিন্দু মহাসভা থেকে জন্ম নেওয়া বিজেপি নেতা নরেন্দ্র মোদী আজ নেতাজি স্বরণে মজেছেন। সোশ্যাল সাইটে নেটিজেনদের কটাক্ষ, প্রধানমন্ত্রী মোদী ঢং করছেন। কেউ কেউ এটাকে অতি ভক্তি চোরের লক্ষণ বলেও মন্তব্য করেছেন। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, লোকসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখেই এহেন কর্মকাণ্ডে মজেছেন প্রধানমন্ত্রী। তবে মোদীর এই দাবার চাল কতটুকু সুদূরপ্রসারী হবে, তা ২০১৯-ই বলে দেবে।