image courtesy : the Daily Siasat

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: সম্প্রতি রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ বা আরএসএস নেতা মুসলিম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সফর করলেন। তাও আবার সৌভ্রাতৃত্ব ও পারস্পরিক ভালোবাসার বার্তা নিয়ে। উল্লেখ্য, আরএসএসের বর্ষীয়ান কর্মকর্তা ইন্দ্রেশ কুমার উত্তরপ্রদেশের সাহারান পুরের ইসলামী শিক্ষাকেন্দ্র ‘দারুল উলুম দেওবন্দ’ সফর করেছেন। অন্যদিকে, তাকে স্বাগতও জানায় মাদ্রাসার প্রধান মাওলানা আবুল কাশিম নোমানী। শুনতে কেমন লাগছে তাই না? আর লাগবে নাই বা কেন। সারাদেশে নানাভাবে মুসলিমদের নির্যাতন ক্রমশই বেড়ে চলেছে।

অভিযোগ, একশ্রেণীর বিভেদকামী মানুষ নিজেদের স্বার্থসিদ্ধি করতে সাম্প্রদায়িক উস্কানি দিচ্ছে। অন্যদিকে, দোষীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা না নিয়ে কেন্দ্র সরকার উল্টে নীরবতা পালন করছে বলেও মানবাধিকার কর্মীদের অভিযোগ। এরই মাঝে হঠাৎ করে আরএসএসের বর্ষীয়ান কর্মকর্তা ইন্দ্রেশ কুমার উত্তরপ্রদেশের সাহারান পুরে অবস্থিত দেশের বৃহত্তম ইসলামী শিক্ষাকেন্দ্র দারুল উলুম দেওবন্দ সফর করলেন।

উল্লেখ্য, তিনি আরএসএস অনুমোদিত সংগঠন ‘মুসলিম রাষ্ট্রীয় মঞ্চ’ বা ‘এমআরএম-এর সভাপতি। জানা গিয়েছে তিনি গত বৃহস্পতিবার দেওবন্দে এমআরএম-এর একটি অনুষ্ঠানের পর দারুল উলুম দেওবন্দে যান। ইন্দ্রেশ কুমার দেওবন্দ মাদ্রাসায় সৌজন্যমূলক সফর করেছেন বলেই খবর। অন্যদিকে, দেওবন্দ মাদ্রাসার আচার্য মাওলানা আবুল কাশিম নোমানি তাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা দিয়ে স্বাগতও জানান। মাওলানা বলেন, দর্শনার্থীদের জন্য আমাদের দরজা সবসময় খোলা। আমরা ইন্দ্রেশজিকে খোলা হৃদয়ে স্বাগত জানিয়েছি। স্বাধীনতা যুদ্ধে আলেম সমাজের ভূমিকা সম্পর্কেও অবহিত করা হয় ইন্দ্রেশ কুমারকে।

অন্যদিকে, আরএসএস নেতা ইন্দ্রেশ কুমার বলেন, তিনি বলেন পারস্পরিক প্রেম ও সৌভ্রাতৃত্বের বার্তা নিয়ে সেখানে গিয়েছিলেন। দেশকে সমৃদ্ধির পথে নিয়ে যেতে সেটাই একমাত্র রাস্তা বলে উল্লেখ করেন। তিনি সরকারকে শিক্ষা উন্নয়ন ও সকলের জন্য চাকরির সুযোগ তৌরির জন্য নীতি প্রণয়নের পরামর্শও দেন। কিছু সুবিধাবাদী নেতা দুটি সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভেদ ও সংখ্যালঘুদের মধ্যে ভীতি সৃষ্টি করছে বলে মন্তব্য করেন ইন্দ্রেশ কুমার। প্রত্যেককে নিজ নিজ ধর্ম মানতে হবে এবং অন্যদের বিশ্বাসকে সম্মান করতে হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর ঘোষণা করেন, সংখ্যালঘুদের মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে। সেই উদ্দেশ্যেই আরএসএস নেতার দেওবন্দ সফর বলে মনে করা হচ্ছে। পুবের কলম