টিডিএন বাংলা ডেস্ক : পার্লামেন্ট সদস্য ও সমাজবাদী পার্টির সাংসদ জয়া বচ্চন বলেছেন, বিজেপির সরকার গরু রক্ষা করতে পারে, কিন্তু নারীদের রক্ষা করতে পারে না।

আজ বুধবার ভারতের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষা রাজ্যসভায় মোদি সরকারকে উদ্দেশ্য করে এ কথা বলেন একসময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া বচ্চন।
রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হত্যায় ১১ লাখ রুপি পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণায় পার্লামেন্ট সদস্যরা ক্ষোভ ও নিন্দা প্রকাশ করেছেন।
ক্ষমতাসীন বিজেপির সহযোগী সংগঠন ভারতীয় জনতা যুব মোর্চার সদস্য যোগেশ ভারশনে ভিডিও ক্যামেরায় মমতাকে হত্যার হুমকি দেন। বীরভূমে হনুমান জয়ন্তী শোভাযাত্রায় মমতা বাধা দেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।
গতকাল মঙ্গলবার মুখ্যমন্ত্রীকে শয়তান বলে উল্লেখ করে যোগেশ বলেন, ‘মমতার মাথার জন্য আমি ১১ লাখ রুপি দেব।’
এই হুমকির প্রতিবাদে জনপ্রিয় অভিনেতা অমিতাভ বচ্চনের স্ত্রী জয়া সরকারের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা গরু রক্ষা করতে পারেন, কিন্তু নারীরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন।’
ভারতের পার্লামেন্টে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মুখতার আব্বাস নকভি বলেন, ‘আমি এ ধরনের বক্তব্যের নিন্দা জানাচ্ছি। রাজ্য সরকার যে কোনো ধরনের পদক্ষেপ নিতে পারে। এ ব্যাপারে তারা স্বাধীন।’
মন্ত্রীর এ বক্তব্যের পরও বিরোধী দল নিশ্চুপ থাকেনি। তারা যোগেশের গ্রেপ্তার দাবি করেন।
জয়া বচ্চন বলেন, ‘এ ধরনের কথা বলার, বিশেষ করে নারীদের নিয়ে, কীভাবে সাহস পায় কেউ ? এভাবেই কি আপনি এই দেশের নারীদের রক্ষা করতে যাচ্ছেন ? নারীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে… আপনারা এটা উৎসাহ দিচ্ছেন ?’
এর জবাবে বিজেপির সাংসদ রূপা গাঙ্গুলি বলেন, ‘আমিও নারী, পুলিশের সামনেই আমাকে তৃণমূলের ১৭ গুন্ডা পিটিয়েছিল। মুখ্যমন্ত্রী (মমতা) এর জবাব দেবেন, যিনি নিজেও নারী ?’
মমতার দল তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ সুখেন্দু শেখর বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীকে শয়তান বলা হয়েছে। বাংলায় ধর্মের নামে সন্ত্রাসের রাজত্ব শুরু হচ্ছে। এর নিন্দা জানানো উচিত।’
এনডিটিভি জানায়, পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ লোকসভায় আরেক মন্ত্রী অনন্ত কুমার মাথার দাম ঘোষণার বক্তব্যের নিন্দা জানান।
কংগ্রেসের সাংসদ মল্লিকার্জুন খাড়গে বলেন, ‘এ ধরনের আচরণের একটা জোরালো বার্তা দেওয়া উচিত সরকার থেকে।’
গতকাল সকালে বীরভুম জেলার সিউড়ির বড়বাগান এলাকায় হনুমান জয়ন্তী উপলক্ষে শোভাযাত্রা বের করে হিন্দু জাগরণ মঞ্চ নামের একটি ধর্মীয় সংগঠন। এ জন্য ওই সংগঠনটি আগাম কোনো অনুমতি নেয়নি দাবি করে আটকে দেয় পুলিশ। এরপর শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধাক্কাধাক্কি হয়। তারা পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এমনকি পুলিশের দিকে ধেয়ে যায় তারা। সে সময় লাঠিপেটা করে পুলিশ। এর পরিপ্রেক্ষিতে যোগেশ ভারশনে মুখ্যমন্ত্রী মমতার মাথার দাম ঘোষণা করেন।