টিডিএন বাংলা ডেস্ক: পেলেট বিদ্ধদের তালিকায় এবার এল বিহারের কিশোরের নাম। নিরাপত্তাকর্মীদের দিকে পাথর ছোড়ার ঘটনায় সে ছিল না। কোনও বিক্ষোভ সমাবেশেও অংশগ্রহণ করেনি। তবুও নিরাপত্তাকর্মীরা পেলেট বন্দুকের গুলিতে দুটি চোখই নষ্ট হতে বসেছে বিহারের কিশোর মুহাম্মদ শাহনওয়াজ আলমের। শাহনওয়াজ হয়তো জানেই না পেলেট বন্দুকের গুলিতে কাশ্মীরে বহু প্রাণ চলে গিয়েছে। বহু যুবক যুবতীর চোখের আলো কেড়ে নিয়েছে পেলেটের গুলি। অনেকেই প্রায়ান্ধ হয়ে জীবন কাটাচ্ছে গুলিবিদ্ধ হয়ে। এতসব খবর রাখে না এক মাস আগে বিহার থেকে কাজে আসা ১৭ বছরের শাহনওয়াজ।

বিহার থেকে শ্রমিকের কাজে যাওয়া কয়েকজন মিলে একটি রুম ভাড়া করে থাকত শাহনওয়াজ। সেদিন অভ্যাসমত জুম্মার নামাজ পড়তে গিয়েছিল বাসার কাছে থাকা একটি মসজিদে। দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলার গ্রামের ঘটনা। জুম্মার নামাজ বাদ মসজিদের বাইরে সরকার বিরোধী স্লোগান দেওয়া হয়। এটাই এখন কাশ্মীরের নয়া রীতি। নামাজের পর মুসল্লিরা তাদের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ করতে থাকে। শাহনওয়াজ নামাজ শেষে বাসায় ফিরছিল। রাস্তার পাশে দোকানে খাবার কিনতে গিয়েছিল। সে সময় নিরাপত্তাবাহিনী তেড়ে যায় বিক্ষোভকারীদের দিকে। প্রাণভয়ে শাহনওয়াজ আশ্রয় গ্রহণ করে গলির মধ্যে। শাহনওয়াজ সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছে, যখন আমি বুঝতে পারলাম পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়েছে তখন আমি বাসায় তাড়াতাড়ি ফেরার মনস্থ করি। কেননা আমি খুবই ঘাবড়ে গিয়েছিলাম। রাস্তার উপর উঠতেই নিরাপত্তাবাহিনীর দিক থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে ছোট পেলেটের গুলি আমার উপর এসে পড়ে। আমার মুখে চোখে লাগে সেই পেলেটের গুলি। শাহনওয়াজের দুটি চোখেই অপারেশন জরুরি হয়ে পড়েছে বলে জানায় চিকিৎসকরা। মাত্র এক মাস আগে পেটের টানে কাশ্মীরে কাজ করতে এসে দুটি চোখই নষ্ট হয়ে যেতে পারে শাহনওয়াজের। কাশ্মীরে পেলেটবিদ্ধ অন্ধের তালিকায় জুড়ে যেতে পারে বিহারের কিশোর শাহনওয়াজের নাম।

কাশ্মীরে বিক্ষোভ দমনের সময় পেলেট বন্ধুক ব্যবহার নিয়ে ইতিপূর্বে বহু আলোচনা বিতর্ক হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার পলেটের অনুমতি এখনও দিয়ে রেখেছে জম্মু-কাশ্মীরের জন্য
২০১৬ সালে জঙ্গি নেতা বুরহান ওয়ানির হত্যার পর কাশ্মীর জুড়ে তীব্র গণআন্দোলন থামাতে পেলেট ব্যবহার করা হয়। যা নিয়ে দেশ-বিদেশে সমালোচনা হয় মানবাধিকার সংগঠনের পক্ষ থেকে। কেন্দ্র সরকার পেলেটের বিকল্প নিয়ে চিন্তা ভাবনাও করে। কিন্তু তবুও পেলেট বিদ্ধ করে চলেছে কাশ্মীরের মানুষদের। দূর্ভাগ্যক্রমে সেখানে থাকা বিহারের কিশোর শাহনওয়াজ পেলেটবিদ্ধ হয়ে চোখ হারাতে বসেছে।