টিডিএন বাংলা ডেস্ক : শিমলায় তীব্র জল সংকট দেখা দিলে সরকারি স্কুলগুলো আগামী পাঁচ দিনে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার।
গত ১৫ দিন থেকে এ রাজ্যে তীব্র জল সংকট বিরাজ করছে। শিমলা শহরের বিভিন্ন জায়গায় এনিয়ে প্রতিবাদ কর্মসূচীও পালন করেছে জনতা। স্থানীয়রা শিমলার মেয়র, ডেপুটি মেয়র এবং কমিশনারের পদত্যাগের দাবি তুলেছেন।
এদিকে রমযানে জল সরবরাহে অবহেলার অভিযোগে শিমলা মিউনিসিপাল কর্পোরেশনের একজন কর্মকর্তাকে অব্যাহতির আদেশ দিয়েছেন জলসেচ ও জনস্বাস্থ্য মন্ত্রী মহিন্দর সিং।
জানা যায়, শনিবার (২ জুন) পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছিল। এসময় জল সরবরাহ দৈনিক ২২.৫ মিলিয়ন লিটার থেকে ২৮ মিলিয়ন লিটারে দাঁড়ায়। অথচ শিমলা শহরে দৈনিক জলের চাহিদা ৩২ থেকে ৩৫ মিলিয়ন লিটার।
এদিকে পর্যাপ্ত জল সরবরাহের দাবিতে সড়ক অবরোধ করেছেন শিমলার কাসুম্পতি, মাহলি, জিওয়ানু, পান্থাঘাতি এবং অন্যান্য কলোনির অধিবাসীরা এসময় একদল নারী শিমলার জল নিয়ন্ত্রণ কক্ষে লাঠি নিয়ে প্রতিবাদ করেন।
মিউনিসিপাল কর্পোরেশন শিমলা শহরকে তিনটি জোনে ভাগ করে পর্যায়ক্রমে জল সরবরাহের প্রস্তুতি নিয়েছে। কিন্তু স্থানীয়দের অভিযোগ, কর্পোরেশন শহরের অনেক অংশেই পর্যাপ্ত জল সরবরাহ করছে না।
অবস্থা বেগতিক দেখে পরিস্থিতি সামাল দিতে পদক্ষেপ নিয়েছেন হিমাচল প্রদেশের উচ্চ আদালত। আদালত জল সরবরাহ কর্তৃপক্ষকে সবসময় সজাগ থাকার আদেশ দিয়েছেন।
বলা হচ্ছে, অপর্যাপ্ত জল সরবরাহের কারণে শিমলার পর্যটন খাতের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। ইতোমধ্যে জলের বিল পরিশোধ না করায় অনেক হোটেলের জল সরবরাহ সংযোগ বন্ধ করে দিয়েছে মিউনিসিপাল কর্পোরেশন।