টিডিএন বাংলা ডেস্ক: জালনোট, কালো টাকা উদ্ধার সহ দুর্নীতি-সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের দাবি তুলেই ২০১৬ সালের ৮ ই নভেম্বর কালো ৫০০ এবং ১০০০ টাকার নোট বাতিলের ঘোষণা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। যদিও সেই নোট বাতিলের তিন তিনটি বছর পেরোলেও কমেনি জালনোট। বরং জালনোট নিয়ে নয়া রিপোর্টে রীতিমতো অস্বস্তিতে বিজেপি সরকার। সরকারী এক তথ্য মতে, নতুন নোটের নিরাপত্তার গণ্ডি পেরনো মোটেও কঠিন নয়। বরং জাল নোটের কারবার বন্ধে চালু হওয়া দুই হাজারের নোটই সবচেয়ে বেশি জাল হচ্ছে! ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর (এনসিআরবি) রিপোর্ট বলছে ২০১৭ এবং ২০১৮ সালে সারা দেশে উদ্ধার হওয়া জালনোটের ৫৬ শতাংশের বেশি নতুন দুই হাজার টাকার নোট। পাশাপাশি বার্ষিক ‘ক্রাইম ইন ইন্ডিয়া’র রিপোর্ট অনুযায়ী বিগত ১৭-১৮ সালে মোট ৪৬.০৬ কোটি টাকা জাল নোট উদ্ধার হয়েছে। যার মধ্যে ৫৬.৩১ শতাংশই নতুন দুই হাজার টাকার নোট।

এদিকে রিপোর্ট অনুযায়ী জালনোট উদ্ধারের ঘটনায় দেশের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে বিজেপি শাসিত তথা মোদী-শাহের রাজ্য গুজরাট। সেখান থেকেই শুধু ২০১৮ সালেই ৬.৯৩ কোটি টাকার জালনোট উদ্ধার হয়েছে। তারপরেই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ, তামিলনাড়ু ও উত্তরপ্রদেশের স্থান। এদিকে কেন্দ্রের নয়া এই রিপোর্টে বেজায় অস্বস্তিতে মোদী সরকার। প্রশ্ন উঠছে জালনোট, কালো টাকা উদ্ধার সহ দুর্নীতি-সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য যে নোট বাতিল করা হলো তা কি সবই ব্যর্থ?