টিডিএন বাংলা ডেস্ক: এক কথায় একে বলা যেতেই পারে, ভারতের কূটনৈতিক চাপের জয়।পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক জালিয়াতি কাণ্ডে অন্যতম অভিযুক্ত মেহুল চোক্সি দেশ ছেড়ে পালিয়েছিল। সঙ্গে নীরব মোদী। তাঁকে আবার কিছুদিন আগে লন্ডনের রাস্তায় দেখা যায়। সেই নিয়ে কম তোলপাড় হয়নি। পরে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। তবে অ্যান্টিগার নাগরিকত্ব নিয়ে বহাল তবিয়েতেই ছিলেন মেহুল। এ বার চোক্সীর নাগরিকত্ব বাতিল করতে চলেছে অ্যান্টিগা সরকার। অ্যান্টিগার প্রধানমন্ত্রী গাস্টন ব্রাউনি আশ্বাস দিয়েছেন, মেহুলের নাগরিকত্ব বাতিল করা হবে এবং ভারতে প্রত্যর্পণের সব রকম সহযোগিতা করা হবে। ফলে শীঘ্রই মেহুল চোক্সিকে দেশে ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে সফল হতে পারে ভারত।

পিএনবি থেকে প্রায় ১৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকার ঋণ নিয়ে ফেরত না দিয়ে ২০১৮ সালের গোড়াতেই ভারত ছেড়ে পালিয়ে যান দুই হিরে ব্যবসায়ী নীরব মোদী ও তাঁর মামা মেহুল চোক্সী। তাঁকে ভারতে ফেরত পাঠানোর বিষয়েও সব রকম সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন অ্যান্টিগার প্রধানমন্ত্রী।

গাস্টন ব্রাউনি বলেছেন, ‘‘এমন ভাবার কোনও কারণ নেই যে আমাদের দেশ ফৌজদারি বা আর্থিক অপরাধীদের স্বর্গরাজ্য। এটা ঠিক যে মেহুল চোক্সী কারও সাহায্যে আমাদের দেশের নাগরিকত্ব পেয়ে গিয়েছেন। কিন্তু তাঁর সেই নাগরিকত্ব বাতিল করা হবে।’’

আগামী মাসে চোক্সিরপ্রত্যর্পণ নিয়ে ফের শুনানি হবে অ্যান্টিগার আদালতে। ভারতীয় আইনকে ফাঁকি দেওয়ায় তাঁর আইনি আত্মরক্ষার অধিকারও কেড়ে নেওয়া হতে পারে বলে খবর।