টিডিএন বাংলা ডেস্ক: সম্পূর্ণ বক্তব্য না দেখিয়ে ইচ্ছাকৃত ভাবে বক্তব্যের কিছুটা অংশ কেটে বিতর্ক তৈরি করা হচ্ছে, অসম পুলিশের সামনে এমনটাই দাবি দিল্লির ছাত্রনেতা শরজিল ইমামের। তিনি জানিয়েছেন, ভিডিও তারই কিন্তু বক্তব্যের অংশ কেটে কেটে মানুষের সামনে তুলে ধরে ইচ্ছাকৃতভাবে বিতর্ক বাড়ানোর জন্য প্রচার করা হয়েছে।

কদিন আগে শারজিলকে দিল্লি থেকে গুয়াহাটি আনা হয়েছে। সেখানে চারদিকের জন্য পুলিশ তাকে হেফাজতে নিয়েছে। অসম পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ জানিয়েছে মেয়াদ বাড়ানোর জন্য ফের আদালতে আবেদন জানানো হবে। ভাইরাল হওয়া ভিডিয়োয় শরজিলকে বলতে দেখা গিয়েছে, অসমে সব বাংলাভাষীকে মেরে ফেলা হবে। রেলপথ উপড়ে ফেলে অসমকে দেশ থেকে কয়েক দিনের জন্য হলেও বিচ্ছিন্ন করতে হবে। এর ভিত্তিতে অসম, মণিপুর, অরুণাচলের পুলিশ মামলা করেছে শরজিলের বিরুদ্ধে।

অসম পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, শরজিল ভিডিয়োতে বলা তাঁর বক্তব্যের জন্য দুঃখপ্রকাশ করে বলেছেন, তিনি উত্তেজনার মাথায় কিছু কথা বলে ফেলেছিলেন। কিন্তু তাঁর পুরো বক্তব্য না-দেখিয়ে একটি অংশ দেখানোয় বেশি সমস্যা হয়েছে।

পুলিশ ও রাজ্য সরকারের মুখপাত্র হিমন্তবিশ্ব শর্মা দাবি করেছেন, ছাত্র সংগঠন পিএফআই এর সঙ্গে শারজিলের যোগাযোগ রয়েছে। শারজিলের দাবি, তাঁদের সঙ্গে পাঁচ লক্ষ মানুষ আছেন। তাই অসমে পিএফআইয়ের সঙ্গে শরজিলের যোগাযোগ এবং তাঁর সঙ্গে কত জনের সমর্থন রয়েছে— তা নিয়েও তদন্ত, জেরা চলছে।