টিডিএন বাংলা ডেস্ক : পুলওয়ামা হামলা নিয়ে তোলপাড় দেশ। এরইমধ্যে চাঞ্চল্যকর দাবি করল `বুম লাইভ’ নামে একটি ফ্যাক্ট চেকিং ওয়েবিসাইট। ইরাকে হামলার একটি পুরনো ভিডিও পুলওয়ামা হামলার সিসিটিভি ফুটেজ বলে চালানো হচ্ছে। এই খবর ফাঁস হওয়ার পর তোলপাড় শুরু হয়েছে। প্রশ্ন উঠছে, পুলওয়ামা হামলার পর যেভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন ভুয়ো ছবি ছড়িয়ে পড়েছে, এটা কি সেরকমই একটি?

৩০ সেকেন্ডের ভিডিওটি সম্ভবত দূরে বসানো সিসিটিভি ক্যামেরায় তোলা। সেখানে দেখা যাচ্ছে, রাস্তা দিয়ে গাড়ির একটি কনভয় যাচ্ছে। ১১ সেকেন্ডের মাথায় ব্যাপক বিস্ফোরণ। ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে যায় গাড়িটি। এই ফুটেজ পুলওয়ামা হামলার বলে ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। বুম লাইভের ফ্যাক্ট চেকিংয়ের মাধ্যমে জানা যাচ্ছে এই ভিডিওটি ২০০৭ সালে ইরাকে আইইডি বিস্ফোরণের ভিডিও ফুটেজ। সোশ্যাল মিডিয়াতে রমরমিয়ে চলছে ভুয়ো ছবির দাপট। এটা কী সেই রকমই একটি?

প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক। কারণ `বুম লাইভে’র ম্যানেজিং অডিটর জেন্সি জ্যাকব জানিয়েছেন, হোয়াটসঅ্যাপ হেল্পলাইনের মাধ্যমে এই ভিডিওটি তাঁদের নজরে আসে। “এরপর লোকজন আমাদের কাছে জানতে চাইছিলেন, এটা পুলওয়ামার ভিডিও কিনা। যদি আপনারা রাস্তার দিকে তাকান, তাহলে বুঝতে পারবেন, এই রাস্তা কাশ্মীরের নয়।” এরপর তাঁরা গুগলে রিভার্স ইমেজ সার্চ করেন এবং দেখেন ২০০৮ সালের এপ্রিল মাসে বহুবার ইউটিউবে ভিডিওটি আপলোড করা হয়েছে। এর পর জানা যায় বিস্ফোরণের ছবিটি ২০০৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসের।

এরপর বিষয়টি ফেসবুককে জানানো হয়। জেন্সি জানিয়েছেন, “কতগুলি প্ল্যাটফর্মে এ ভিডিও শেয়ার করা হয়েছে, তার কোনও নির্দিষ্ট হিসেব নেই। তবে আমরা ফেসবুককে বিষয়টি জানিয়েছি। ভিডিওটি তারা তুলে নেবে কিনা সেটা তাদের সিদ্ধান্ত।”

কে বা কারা কী উদ্দেশ্যে এই ছবি পোস্ট করেছিল, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ফেসবুক এখনো কোনো পদক্ষেপ করেনি।

এখানেই শেষ নয়। এই হামলার আগে পর্যন্ত জম্মু-কাশ্মীর সড়কে কোনও সিসিটিভি ছিল না। হামলার পর রাজ্য পুলিশকে শ্রীনগর-সোনমার্গ এবং জম্মু-শ্রীনগর সড়কে সিসিটিভি বসানোর ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে। তাহলে বিস্ফোরণের সময়ের ফুটেজ কোথা থেকে পাওয়া গেল?

 

বুমের তরফ থেকে আরও একটি ভুয়ো খবর ফাঁস করা হয়েছে। সিরিয়ার একটি গাড়ি বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা পুলওয়ামার ফুটেজ বলে ব্যবহৃত হচ্ছে। সিরিয়া-তুর্ক সীমান্তে একটি সিকিওরিটি চেকপয়েন্টের কাছে গাড়ি বোমা বিস্ফোরণের ৯ সেকেন্ডের ভিডিও ফেসবুকে পুলওয়ামার ভিডিও বলে প্রচারিত হচ্ছিল। রিভার্স ইমেজে দেখা গেছে এ ঘটনা তুর্ক সীমান্তে, যেখানে বিস্ফোরণ ঘটেছিল এ বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি।

বুমের দাবির পক্ষে প্রমাণ আছে, যুক্তি আছে। কারা কী উদ্দেশ্যে এমনটা করল, সেটা কি তদন্ত করে দেখা হবে?

Advertisement
mamunschool