শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) শতাধিক পুলিশকর্মীর পাহারায় শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশ করতে গিয়েছিলেন রেহানা ফাতিমা। – ছবি : পিটিআই

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : একজন মুসলিম হয়েও শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশ করতে চেয়েছিলেন নারী অ্যাক্টিভিস্ট রেহানা ফাতিমা। এ ঘটনাকে ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত’ আখ্যায়িত করে তাকে মুরতাদ (ইসলাম থেকে বহিষ্কার) ঘোষণা করেছে সেখানকার প্রভাবশালী মুসলিম সংগঠন ‘দ্য কেরালা মুসলিম জামাত কাউন্সিল’।

সংগঠনটি ঘোষণা করেছে, রেহানা ফাতিমা নামে ওই নারীর মুসলিম নাম ব্যবহার করার আর কোনো অধিকার থাকবে না। লাখ লাখ হিন্দু ভক্তর ‘ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত’ করার পরিপ্রেক্ষিতে কাউন্সিল তার বিরুদ্ধে এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে বলে জানিয়েছে সংগঠনটি।

গত শুক্রবার শবরিমালা মন্দির খোলার পর তৃতীয় দিনে রেহানা ফাতিমা ও তার সঙ্গী কবিতা জাক্কালা নামে এক নারী সাংবাদিক শতাধিক পুলিশকর্মীর পাহারায় শবরীমালা মন্দিরের পাঁচশ মিটারের মধ্যে পৌঁছেও গিয়েছিলেন। কিন্তু পাহাড়চূড়ায় অবস্থিত ওই মন্দিরে প্রবেশ করার আগেই তুমুল বিক্ষোভের মুখে তাদের ফিরে আসতে হয়।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুজন অজ্ঞাতপরিচয় দুষ্কৃতী মোটরসাইকেলে এসে রেহানার কোচির বাসভবনে হামলা চালায়। সে সময় তিনি সংবাদমাধ্যমকে বলেছিলেন, ‘আমার জীবনের ওপরও হামলা হতে পারে বলে আশঙ্কা করছি। এমনকি আমার বাচ্চারা নিরাপদে আছে কি না সেটাও জানি না।’