টিডিএন বাংলা ডেস্ক: জাদুকরদের কাছ থেকে সাধারণ মানুষ অনেক বিপজ্জনক জাদু দেখে থাকেন। আর অনেক আনন্দও উপভোগ করেন। কিন্তু জাদুর মধ্যে কোনো বিঘ্ন ঘটলে সেই আনন্দটাই শেষ হয়ে যায়। এমনই এক ঘটনা ঘটে গেল হাওড়া ব্রিজের পাশে ফেয়ারলি ঘাটে। রবিবার দুপুর পৌনে একটা নাগাদ হুগলির বাসিন্দা চঞ্চল লাহিড়ী ফেয়ারলি ঘাট থেকে লঞ্চে ওঠেন৷ ২৮ নম্বর পিলারের কাছে লঞ্চ থেকে ঝাঁপ দেন তিনি৷ যে ম্যাজিক তিনি দেখাতে যাচ্ছিলেন, তা বেশ ঝুঁকিবহুল, জটিলও৷ তাঁর হাত-পা-মুখ বাঁধা থাকবে৷ হাওড়া ব্রিজে থাকা ক্রেন দিয়ে তাঁকে লঞ্চ থেকে প্রথমে তোলা হবে৷ তারপর ওই ক্রেন থেকেই গঙ্গায় ছুঁড়ে ফেলা হবে৷ সেখান থেকে তিনি নিজেই উঠে আসবেন৷ মিলেনিয়াম পার্কের কাছে গঙ্গায় স্টান্ট দেখানোর জন্য নেমেছিলেন তিনি৷ কিন্তু মাঝপথেই বিপত্তি৷

ফেয়ারলি ঘাট থেকে মাঝগঙ্গা পর্যন্ত যান চঞ্চল লাহিড়ী৷ হাওড়া ব্রিজের উপরে থাকা ক্রেন তাঁকে তুলে নেয়৷ এরপর সেখান থেকে ছুঁড়ে ফেলা হয় গঙ্গায়৷ মাঝনদীতে তিনি ডুবে যান৷ কিছুক্ষণ পর তাঁর উঠে আসার কথা৷ কিন্তু দীর্ঘ সময় কেটে যাওয়ার পরও উঠছেন না দেখে, মানুষজন আতঙ্কিত হয়ে পড়েন৷ কোনও কোনও প্রত্যক্ষদর্শীর মতে, তিনি হাত-পা ছুঁড়ছিলেন নদী থেকে ওঠার জন্য৷ কিন্তু তাঁকে উদ্ধার করা যায়নি৷ শেষমেশ তিনি ডুবে যান বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

তাঁরাই খবর দেন নর্থ পোর্ট থানায়৷ পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে ছুটে যায়৷ নামানো হয় ডুবুরি৷ এখনও চলছে তল্লাশি৷ এর আগেও চঞ্চল লাহিড়ী একাধিকবার ম্যাজিক দেখাতে গিয়ে বিপদে পড়েছেন৷ নিজেকে ‘ম্যানড্রেক’ বলে পরিচয় দিয়ে কৌশল করে মানুষকে প্রতারণার অভিযোগও উঠেছে৷ একবার জলের উপর দিয়ে হাঁটার ম্যাজিক তিনি দেখাতে গিয়েছিলেন৷ তাতে কৌশল ফাঁস হয়ে যাওয়ায় একবার গণপ্রহারের মুখে তাঁকে পড়তে হয়েছিল৷ গঙ্গা থেকে তাঁকে উদ্ধারের মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছেন ডুবুরিরা৷