টিডিএন বাংলা ডেস্ক: লোকসভা নির্বাচন উপলক্ষে ক্ষমতাসীন বিজেপির প্রথম দফার প্রার্থী তালিকায় দলটির সিনিয়র নেতা লালকৃষ্ণ আদবানীর (৯১) নাম না থাকায় প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে কটাক্ষের পাশাপাশি ‘বিজেপি হটাও, দেশ বাঁচাও’ ডাক দেয়া হয়েছে।

আদবানী এরআগে গান্ধীনগর আসন থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে জিতেছিলেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঘোষিত বিজেপির প্রথম প্রার্থী তালিকা অনুযায়ী গুজরাটের গান্ধীনগর আসন থেকে লালকৃষ্ণ আদবানীর পরিবর্তে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ নির্বাচনে লড়বেন।

বিজেপির উত্থানের নেপথ্যে থাকা আদবানীকে প্রার্থী না করায় নির্বাচনে জয়কেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে বলে বলা হচ্ছে। দলীয় জরিপেও নাকি উঠে এসেছে, আদবানীর পরিবর্তে অমিত শাহ প্রার্থী হলেই জয়ের সম্ভাবনা আছে। যদিও বিজেপির একাংশের মতে, গান্ধীনগর আসন ১৯৮৯ সাল থেকে বিজেপির দুর্গ হওয়ায় সেখানে আদবানী জিততে পারতেন না, এই ধারণা ভুল।

কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সিং সূর্যেওয়ালা ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বলেন, ‘প্রথমে জোর করে লালকৃষ্ণ আদবানীকে মার্গদর্শক মণ্ডলীতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছিল। এবার তাঁর আসনও কেড়ে নেয়া হল। মোদি যখন দলের প্রবীণ নেতাদেরই সম্মান করতে পারেন না, দেশের জনতাকে কী করে করবেন? বিজেপি ভাগাও, দেশ বাঁচাও।’

বিশ্লেষকদের একাংশের মতে বিজেপি এবার ৭৫ বছরের বেশি বয়সী নেতাদের প্রার্থী না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেজন্য আগেই বিজেপির সিনিয়র নেতা কলরাজ মিশ্র (৭৮), ভগত সিং কোশিয়ারি (৭৭), ভুবন চন্দ্র খান্ডুরি (৮৫) নির্বাচনে না লড়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

বিজেপির পরবর্তী প্রার্থী তালিকায় দলটির সিনিয়র নেতা ৮৫ বছর বয়সী মুরলী মনোহর যোশির নাম থাকবে কি না রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের দৃষ্টি এখন সেদিকেই।