টিডিএন বাংলা ডেস্ক: নাম পরিবর্তন করা যেন অভ্যাসে পরিণত হয়েছে বিজেপি সরকারের কাছে। বিশেষ করে মোঘল আমলের ঐতিহাসিক জায়গা গুলোর নাম পরিবর্তন করতে উঠে পরে লেগেছে বিজেপি। এর আগেও উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন ঐতিহাসিক জায়গা, স্টেশন, রাস্তা ইত্যাদি নাম পরিবর্তন করেছে যোগী আদিত্যনাথের সরকার। এবার ঐতিহাসিক তাজমহলের জেলা “আগ্রার” নাম পরিবর্তন করে “আগ্রাবন” করার ভাবনা যোগী সরকারের। এই বিষয়ে সরকারের তরফে আম্বেডকর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিশেষ পরামর্শ চেয়েছে।

জানা গিয়েছে, আগ্রা নামের ঐতিহাসিক পর্যালোচনা করতে বলে বিশেষ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে আম্বেডকর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগকে। এই নির্দেশের পর ইতিহাস বিভাগ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে বলে জানা গিয়েছে।

সূত্রের খবর, অনেকের বিশ্বাস বর্তমানের আগ্রার পার্শ্ববর্তী এলাকাকে আগ্রাবন বল হত এককালে। সেই বিশ্বাস থেকেই এই নাম পরিবর্তনের চিন্তা ভাবনা শুরু করে সরকার। কোন পরিস্থিতিতে আগ্রার নাম পরিবর্তন করে আগ্রা রাখা হয় সেই বিষয়ে খতিয়ে দেখতে ইতিহাসবিদদের নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

এর আগে ওই রাজ্যের ঐতিহ্যবাহী শহর এলাহাবাদের নাম বদল করে যোগী সরকার। শহরের নাম পাল্টে প্রয়াগরাজ করা হয়। এছাড়া উত্তর প্রদেশের ঐতিহাসিক রেলস্টেশন মোগলসরাইর নাম বদলে পণ্ডিত দীনদয়াল উপাধ্যায় নগর জংশন করা হয়। মোগলসরাই হলো ভারতের চতুর্থ ব্যস্ততম রেলস্টেশন। আর এই স্টেশনেরই রয়েছে এশিয়ার সর্ববৃহৎ রেল ইয়ার্ড। এই ইয়ার্ডের দৈর্ঘ্য সাড়ে ১২ কিলোমিটার। এখানে ৫ হাজার ওয়াগন রাখার ব্যবস্থা রয়েছে। মোগলসরাই রেলস্টেশনের প্রতিষ্ঠা ১৮৬২ সালে।

এছাড়া উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন স্থানের নাম পরিবর্তনের দাবি তুলেছে বিজেপি নেতারা। আজমগড়কে আরিয়ামগড়, আলীগড়কে হরিগড় এবং মুজাফফরনগরকে লক্ষ্মীনগরে নামকরণের দাবি উঠেছে বিভিন্ন সময়। এমন কী উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের রাজধানীর লখনৌর নামও বদলে দেওয়ার দাবি ওঠে। তাদের দাবি, লখনৌর আদি নাম ছিল লক্ষ্মণপুর।