টিডিএন বাংলা ডেস্ক : বেশ কিছুদিন হয়ে গেল রাজনৈতিক অভিষেকের। উত্তর প্রদেশ থেকে শুরু তাঁর রাজনৈতিক সফর। কিন্তু এদিন মোদীর খাস তালুকে দাঁড়িয়ে তাঁকে ফালাফালা করলেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢরা। এদিন গুজরাতের আহমেদাবাদে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক হয়। বৈঠকের পর বেকারত্ব থেকে কৃষক সমস্যা সহ একাধিক ইস্যুতে নরেন্দ্র মোদীকে নিশানা করলেন তিনি।

রাহুল গান্ধীকে ভোটের ময়াদনে বারবার দেখেছেন দেশবাসী। রাফাল থেকে একাধিক অস্ত্রে বারবার মোদীকে নিশানা করেছেন তিনি। কিন্তু প্রিয়ঙ্কা কী বলেন, সেই দিকেই এদিন নজর ছিল দেশের। তাঁর কথায়, এ লড়াই স্বাধীনতা সংগ্রামের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়।

মঙ্গলবার গুজরাতের আহেমদাবাদে বৈঠকে বসে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি। লোকসভা ভোটের রণকৌশল ঠিক করতেই দলের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণ কমিটির এই বৈঠক। সোনিয়া গান্ধী, রাহুল গান্ধী, মনমোহন সিংহ ছাড়াও দলের শীর্ষ নেতৃত্ব উপস্থিত ছিলেন বৈঠকে।

এই বৈঠক শেষেই মোদী সরকারের বিরুদ্ধে একের পর এক নানা ইস্যুতে আক্রমণ করেন প্রিয়ঙ্কা। পাঁচ বছর আগে ক্ষমতায় আসার সময় মোদী প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, কালো টাকা উদ্ধার করে গরিব মানুষের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা দেওয়া হবে। এ ছাড়া প্রতি বছর দু’কোটি বেকারের চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী। প্রিয়ঙ্কা এ দিন প্রশ্ন তোলেন, ‘‘কোথায় গেল সেই ১৫ লক্ষ টাকার প্রতিশ্রুতি। কেনই বা পাঁচ বছরেও চাকরির প্রতিশ্রুতি পূরণ হল না?’’

মোদী জমানার পাঁচ বছরে কৃষকদের অবস্থা আরও খারাপ হয়েছে। ফসলের দাম পাচ্ছেন না তাঁরা। এই অভিযোগ দীর্ঘদিনের। এই ইস্যুতে এদিন মোদী সরকারকে আক্রমণের পাশাপাশি হিংসা ছড়ানো নিয়েও সুর চড়ান প্রিয়ঙ্কা। তিনি বলেন, ‘‘যেদিকেই তাকান দেখতে পাবেন, গণপিটুনি, হত্যা চলছে। এ এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি। এই পরিস্থিতির বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে আপনাদেরই। আর এই যুদ্ধ স্বাধীনতা সংগ্রামের চেয়ে কিছু কম নয়।