image description

নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, নওদা: শুক্রবার ২৫ দিনে পড়ল নওদার পাটিকাবাড়ির সিএএ এনআরসি বিরোধী ধরনা মঞ্চ।
দল-মত-বর্ণ-ধর্ম ভুলে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মঞ্চে আসছেন চাকুরিজীবি ব্যবসায়ী থেকে কৃষক ছাত্র যুব সহ সমাজের সব শ্রেণীর মানুষ। তবে দলে দলে মহিলাদের স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতি মঞ্চের গুরুত্বকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

এনআরসি এনপিআর সিএএ বিরোধীতার পাশাপাশি এই মঞ্চ রাজধানী দিল্লিতে ঘটে যাওয়া হিংসার বিরুদ্ধেও আওয়াজ তুলেছে।
উদ্যোক্তাদের মধ্যে আবু তাহের মালিথ্যা ও ফিরোজ সেখ জানান, দিল্লির ভয়াবহ হিংসার ঘটনার পর মানুষের উপস্থিতি বেড়েই চলেছে। আজ কয়েক হাজার মহিলা ও পুরুষ উপস্থিত হয়েছে। লোক বেশি হওয়ার সংবাদ পেয়ে আমরা মঞ্চের জায়গা কয়েক গুন বাড়িয়েও অনেক মহিলাকে ভিড়ে দাঁড়িয়ে বক্তব্য শুনতে হয়েছে।’

এদিন কলকাতা থেকে এসেছিলেন রাজ্যের এনআরসি বিরোধী মুক্ত মঞ্চের কনভেনর ইমতিয়াজ আহম্মেদ মোল্লা। তিনি বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেন, পশ্চিমবঙ্গে কয়েক লাখ এবং সারা দেশে কয়েক কোটি মানুষের নাগরিকত্ব হারাবে এনআরসি তে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। নাগরিকের ভোটে নির্বাচিত সরকারের এমন নীতি মানুষ মেনে নিতে পারেন না। এদিন তিনি আরও বলেন, মোদী-শাহর বিজেপি প্রত্যেক রাজ্যের ভোটে এবং দিল্লিতে পরাজিত হয়ে আজ হিংসাকে শেষ অস্ত্র হিসেবে বেছে নিয়েছে। এ দেশ কখনো এই সরকার কে ক্ষমা করবে না।

শৈলেন দাস, জিয়ারুল মন্ডল, ইউসুফ শেখ, আশীষ দত্তদের প্রশ্ন, ধর্ম নিরপেক্ষ দেশে কেন ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়া হবে? আর আমাদের ভোটার কার্ড যদি নাগরিকত্বের পরিচয় না বহন করে তবে সেই সরকারকে আমরা মানব কেন? অবিলম্বে এই জনবিরোধী, সংবিধান পরিপন্থী কালো আইন প্রত্যাহার করুক সরকার।

নতুন আঙ্গিকে দেশ গড়ার অঙ্গীকার নিয়ে সংসার সামলে ধরনা মঞ্চে মহিলাদের উপস্থিতি বাড়ছে নিয়মিত। রাত্রি দশটা পর্যন্ত তারা থাকছেন ধরনা মঞ্চে। দিচ্ছেন স্লোগান বক্তব্য। মায়েদের দেখে স্বাধীনতার মন্ত্রে দেশাত্মবোধে উজ্জীবিত হচ্ছে কোলে থাকা ছোট্ট শিশুটিও। দিনের বেলায় মঞ্চ সামলাচ্ছেন পুরুষরা। আর এভাবেই নিজেদের রাজনৈতিক পরিচয়, ধর্ম ভুলে এক মঞ্চে মিলিত হচ্ছেন নওদার আপামর নারী পুরুষ শিশু বৃদ্ধ সহ সকল শ্রেণীর মানুষ। এখানে ভারতীয় সংবিধান রক্ষা মঞ্চ যেন হয়ে উঠেছে হিন্দু-মুসলিম মহামিলনের ক্ষেত্র।