টিডিএন বাংলা ডেস্কতিনি আদিবাসীদের অধিকার রক্ষায় সরব। পেশায় অধ্যাপক।  গোমাংস খাওয়ার অধিকার নিয়ে ফেসবুকে সওয়াল করেছিলেন। তার জন্য তাঁকে গ্রেফতার হতে হয়। ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়খণ্ডের জামশেদপুরের শাকচী গ্রামে। হাফপোস্টে এই খবর প্রকাশিত হয়েছে। ২০১৭ সালে অখিল  ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের অভিযোগের ভিত্তিতে জিতরাই হাঁসদাকে গ্রেফতার করা হয়। প্রশ্ন হল, এতদিন পর তাঁকে গ্রেফতার করা হল কেনএর উত্তর একটাই, সাধারণ নির্বাচনের মধ্যে আদিবাসীদের চটাতে চায়নি বিজেপি। ভোটে বিপুল জয়ের পর গোমাংস খাওয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে তৎপর প্রশাসন। হাঁসদা আইনজীবী বলেন, বিজেপি এতদিন আদিবাসী সম্প্রদায়কে চটাতে চায়নি। এই রাজ্যে তারা বিপুলভাবে জিতেছে। তারপর স্বমূর্তি ধারণ করেছে বিজেপি।

এফআইআর-এ বলা হয়েছে, ২০১৭ সালে হাঁসদা আদিবসী সম্প্রদায়ের গোমাংস খাওয়ার পক্ষে লিখেছিলেন। তাঁর আগাম জামিনের আবেদন বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। ভারতীয় দণ্ডবিধির ধর্মীয় আবেগকে আঘাত করার চেষ্টার অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এরপরে আদিবাসী সম্প্রদায়ের অধিকার রক্ষা সংগঠন কোলহান বিশ্ববিদ্যালেয়র উপাচার্যের কাছে অধ্যাপককে বরখাস্ত না করার আবেদন করে। এই খবর সামনে আসার পর নানা মহলে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। কে কী খাবেন, তা ঠিক করে দেবে প্রশাসন? তা না মানলে গ্রেফতার!