টিডিএন বাংলা ডেস্ক : এইবার আদালতের দ্বারস্থ হলেন ২০০ সিআইএসএফ জওয়ান। এর আগে কঠিন পরিস্থিতিতে কাজ করা, খারাপ খাবার এবং এলাউন্সেজের পেমেন্ট না পাওয়ায় অভিযোগ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছিলেন তারা। চিঠি দিয়ে কোন কাজ না হওয়ায় ‘হয়রানি’-র অভিযোগ তুলে বেঙ্গালুরুর কেম্পে গৌড়া আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্টে কর্মরত ২০০ জওয়ান দ্বারস্থ হলেন কর্ণাটক হাইকোর্টের।

আবারো এধরণের অভিযোগ প্রমাণ করে, বিএসএফ জওয়ানদের বিভিন্ন দলগুলি কেমন ধরনের সমস্যায় ভুগছেন।
গৃহ মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বিগত ৩ বছরে আধা সামরিক বাহিনীর ৩৪৪ জন জওয়ান আত্মহত্যা করেছেন। এরমধ্যে ১৫ জন এইবছরের শুরুতেই মৃত্যকে আলিঙ্গন করেছেন। পরিসংখ্যান আরো বলছে, আত্মহত্যাকারী ১৫ শতাংশ অর্থাৎ ৫৩ জন জওয়ান সিআইএসএফের ছিলেন। এছাড়াও ২৫টি মামলায় বেশকিছু জওয়ানকে তাদের সহকর্মীরাই খুন করেছেন। এহেন ঘটনায় সিআইএসএফের ১৩ জওয়ান জড়িত ছিলেন।


এইবছরের জানুয়ারি মাসে কেম্পে গৌড়া আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্টে কর্মরত এক জওয়ান নিজের বন্দুকে নিজেই আত্মহত্যা করেছিলেন।
আন্তর্জাতিক এই এয়ারপোর্টের খারাপ ব্যবস্থার অভিযোগ তুলে সিআইএসএফের এক জওয়ান বলেন, ‘খাবারের মান খুবই খারাপ। আমাদের শিফটেও কোন ব্যবধান নেই। আমাদের ভাকো থাকার জায়গাও দেওয়া হয়না।’ সিনিয়ররা দুর্ব্যবহার করে বলেও অভিযোগ করেন ওই জওয়ান।