টিডিএন বাংলা ডেস্ক: দেশে জোরালো থাবা বসিয়েছে মারণ করোনা ভাইরাস। ঝড়ের গতিতে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। দেশজুড়ে করোনা মোকাবিলায় লকডাউনের মেয়াদ বাড়িয়ে আগামী ৩ রা মে পর্যন্ত করা। লকডাউনের জেরে চরম দুর্দশা শ্রমিকদের। কেউ কেউ দিনে একবার আবার অনেকের না খেয়েই কাটছে অনেকের দিন। কিন্তু দেশের এমন ভয়াবহ পরিস্থিতিতে কোথায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ? এখনও পর্যন্ত করোনা নিয়ে কোনও উদ্যোগ নিয়ে দেখা যায়নি তাকে। বিপর্যয় মোকাবিলার নোডাল মন্ত্রকের ইনচার্জ অমিত শাহই। কিন্তু তার চুপচাপ বসে থাকা নিয়ে জোর গুঞ্জন শুরু হয়েছে দেশীয় রাজনীতিতে।

দলীয় সূত্রে খবর, শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে মনোমালিন্যের জন্যই তিনি অন্তরালে চলে গিয়েছেন। জনতা কার্ফুর সময়ও একটা কিছু তাঁকে পোস্ট করতে দেখা যায়নি। আরএসএসের সঙ্গেও মতবিরোধ তৈরি হয়েছে শাহের বলে খবর। তাই অন্তরালে তিনি। তাঁর জন্য বিভিন্ন রাজ্যে সংগঠনের ক্ষতি হয়েছে বলে প্রশ্ন উঠেছে দলের অন্দরেই। তবে অন্য একটি সূত্র বলছে, গোপনে ঘুঁটি সাজাচ্ছেন অমিত শাহ। তাই তিনি প্রকাশ্যে আসছেন না।

এদিকে দেখতে দেখতে কেটে গিয়েছে তিন সপ্তাহের বেশি। এতদিনেও একবারের জন্য দেখা মেলেনি তাঁর। লকডাউন শুরু হওয়ার পর থেকেই কার্যত লোকচক্ষুর আড়ালে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। হ্যাঁ, দেশের এই জরুরি পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী ও অন্য মন্ত্রীরা যখন প্রকাশ্যে সক্রিয়, তখন কিছু টুইট করা ছাড়া অন্তরালে শাহ। আর এই নিয়েই উঠছে প্রশ্ন।

জানা গিয়েছে, মতান্তরের কারণ হিসেবে উঠে এসেছে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের নাম। যেভাবে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ডোভাল প্রথমে দিল্লী সংঘর্ষ থামানো, পরে লকডাউনের সময়ে তাবলীগ জামাতের সদস্যদের নিভৃতবাসে পাঠাতে সক্রিয় ভূমিকা নেন তাতে ক্ষুব্ধ অমিত। তাহলে রাজনীতির ময়দানে ফের কবে অমিত শাহকে দেখা যাবে?‌ উত্তর নেই গেরুয়া শিবিরের।