টিডিএন বাংলা ডেস্ক: নিম্ন আদালত অপরাধীদের কঠোর শাস্তি দেয়নি এবং এক অভিযুক্ত বিশাল জনগোত্রকে বেকসুর মুক্তি দিয়েছে। সেই কারণে নিহত ৮বছরের কাশ্মীরি কন্যার পিতা হাইকোর্টে আবেদন জানান। ১০ই জুলাই পিটিশন দাখিল করা হয় পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টে। বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ নোটিশ দিল জম্মু-কাশ্মীর সরকার অভিযুক্তদের। আগামী ৭ই আগস্ট পরবর্তী শুনানি।

নিহত শিশুকন্যার পিতা দাবি জানিয়েছেন, বর্বরতম এই হত্যায় নিম্ন আদালত যে তিনজনের যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছে, তাদের মৃত্যু দেওয়া উচিত। আর যাদের মাত্র ৫বছরের সাজা দেওয়া হয়েছে, তাদের জন্য অবশ্যই যাবজ্জীবন সাজা ঘোষণা করা হোক। এ ছাড়া প্রধান অভিযুক্ত ও মন্দিরের পুরোহিত সঞ্জিরামের পুত্র বিশাল জনগোত্রকে উপযুক্ত প্রমাণ অভাবে মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে নিম্ন আদালতে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত তথ্য-প্রমাণ রয়েছে। তাই তার পুনরায় বিচার করার আবেদন জানানো হয়।

উল্লেখ্য জম্মু-কাশ্মীরের আট বছরের শিশুকন্যাকে অপহরণ করে মন্দিরে গোপন আস্তানায় রাখা হয়। সেখানে তাকে চার দিন ধরে মাদক জাতীয় ওষুধ খাইয়ে ধর্ষণ করা হয়। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় জঙ্গলে ফেলে আসা হয় তার লাশ। স্থানীয় থানার কয়েকজন পুলিশ অভিযুক্তদের তালিকায় এবং এই ঘটনায় স্থানীয় বিজেপি নেতারা অভিযুক্তদের ছেড়ে দেওয়ার দাবিতে মিছিল বের করে। এমনকি আদালতে আইনজীবীদের উপর চাপ সৃষ্টি হয়। পরে সেই মামলা হস্তান্তরিত হয় পাঞ্জাবে। কিন্তু নিম্ন আদালতের রায়ে খুশি হতে পারেনি নিহত শিশুটির পরিবার। (সৌজন্যে: পুবের কলম)