টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বার বার সেই একই অপরাধ। বার বার মবলিঞ্চিং এর ঘটনা ঘটেই চলেছে বিজেপি শাষিত উত্তরপ্রদেশে। যোগীরাজ‍্যে আবার এক যুবককে চোর সন্দেহে দলিত যুবককে বিবস্ত্র করে মারধরের পরে গায়ে আগুন ধরিয়ে দিল উন্মত্ত জনতা। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের বারাবাঁকিতে। সুজিত কুমার নামের বছর আঠাশের ওই যুবককে উদ্ধার করে পুলিশ। বর্তমানে লখনউয়ের একটি হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছে। ওই যুবকের দেহের ৩০% আগুনে ঝলসে গিয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত তিন জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গণপিটুনির ঘটনায় জড়িত অন্য অজ্ঞাত পরিচয় অভিযুক্তদের সন্ধানে তল্লাশি চলছে।

পুলিশ জানিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে শ্বশুর বাড়ি থেকে ফিরছিলেন সুজিত কুমার। রঘুপুরা গ্রামের কাছে একদল কুকুর তাঁকে তাড়া করে। প্রাণে বাঁচতে স্থানীয় একটি বাড়ির বাইরে ছাউনির তলায় আশ্রয় নেন তিনি। এদিকে, এত রাতে অজ্ঞাত পরিচয় ওই যুবককে গ্রামের একটি বাড়ির বাইরে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে কয়েকজন বেরিয়ে আসে। সুজিত কে জেরা শুরু করে তারা। তাদের হই হট্টগোলএ গ্রামের বাকি লোকজন বেরিয়ে আসে। এই পরিস্থিতিতে গ্রামবাসীদের ওই যুবককে জানান, স্ত্রীকে আনতে তিনি শ্বশুরবাড়ি গিয়েছিলেন এবং সেখান থেকে ফিরছেন। কিন্তু সুজিতের কথা শুনতে রাজি ছিল না কেউ। বরং গ্রামবাসিরা তাকে চোর বদনাম দিয়ে মারধর শুরু করে। এতেই ক্ষান্ত হয়নি উন্মত্ত জনতা। ওই যুবক কে বিবস্ত্র করে গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় তারা।

এরমধ্যে গ্রামেরই কয়েকজন বাসিন্দা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশের টহলদারি দলে এসে সুজিতকে দগ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে। প্রথমে তাকে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে থেকে লখনউয়ে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।