স্পোর্টস ডেস্ক, টিডিএন বাংলা : শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে জয় ছিনিয়ে নিল হায়দরাবাদ। ম্যাচের পরতে পরতে ছিল উত্তেজনা। বিরাট কোহলি, এবি ডি ভিলিয়ার্সদের পাত্তাই দেননি সাকিব-রশিদ-পাঠানরা। তাদের কল্যাণে স্মরনীয় এক জয় পায় হায়দরাবাদ।

হায়দরাবাদের করা ১৪৬ রান তাড়া করতে নেমে ৫ রানে হেরে যায় বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু।

৭ ওভারে কোহলিদের সংগ্রহ ছিল ১ উইকেটে ৬০ রান। দলের এমন অবস্থায় জয়ের স্বপ্নে বিভোর ছিল ব্যাঙ্গালুরু। কিন্তু এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়ে গেলে কঠিন চাপের মধ্যে পড়ে যায় তারা।

আর এই চাপ সামলিয়ে উঠতে না পারায় তীরে গিয়ে তরী ডুবে কোহলিদের। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৯ রান করেন কোহলি। এছাড়া ৩৩ রান করেন গ্রান্ডহোম।

উপ্পলের রাজীব গান্ধী স্টেডিয়ামে মাত্র ১৪৬ রান খুব বড় কিছু ছিল না বিরাট কোহলির রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর সামনে। ব্যাঙ্গালুরুকে শেষ পর্যন্ত মাত্র ৫ রানের ব্যবধানে হারিয়ে সবার আগে প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

সাকিবদের ছুঁড়ে দেয়া ১৪৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৪১ রানে থেমে যায় ব্যাঙ্গালুরুর ইনিংস। সর্বোচ্চ ৩৯ রান করেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ২০ রান করেন পার্থিব প্যাটেল। এবি ডি ভিলিয়ার্স আউট হয়ে যান মাত্র ৫ রান করে। কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম করেন ২৯ বলে ৩৩ রান।

শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল ১২ রানের। ভুবনেশ্বর কুমারের কাছ থেকে নিতে পারলো কেবল ৬ রান। মানদ্বীপ সিং আর কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম উইকেটে থাকলেও পারেনি জয় তুলে নিতে।

এই জয়ের ফলে ১০ ম্যাচ শেষে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে সবার আগে প্লে-অফ নিশ্চিত করে ফেলেছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ১০ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে চেন্নাই সুপার কিংস। পঞ্চম স্থানে থাকা মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের পয়েন্ট ৮।

তারা বাকি ৪ ম্যাচ জিতলেও পয়েন্ট হবে ১৬। কিন্তু, রান রেটের হিসেবে নিশ্চিত পিছিয়ে থাকতে হবে। অন্যদিকে বাকি ৪ ম্যাচেই হারতে হবে হায়দরাবাদকে। যেটা আপাত দৃষ্টিতে অসম্ভব।