টিডিএন বাংলা ডেস্ক: প্রাক্তন ক্রিকেটার তথা ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক মহম্মদ আজহারউদ্দিনের বিরুদ্ধে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ উঠল। অভিযোগ, আজহারউদ্দিন এবং তাঁর তিন সঙ্গী মহারাষ্ট্রের অরঙ্গাবাদের দানিশ ট্যুর এন্ড ট্রাভেলসের কর্ণধারের সঙ্গে ২০.৯৬ লক্ষ টাকা প্রতারণা করেছেন। এমনটাই অভিযোগ করে তাদের নামে এফআইআর দায়ের করেছে ওই ট্রাভেলসের কর্ণধার।

এফআইআর- এ তিনি অভিযোগ করেন, দানিশ ট্যুর এন্ড ট্রাভেলসের পক্ষ থেকে সংস্থার কর্ণধার সাহাব গত নভেম্বরে ২০.৯৬ লাখ টাকার বিমানের টিকিট কিনেছিলেন। ওই টিকিটগুলি মহম্মদ আজহারউদ্দিনের জন্য কেনা হয়েছিল। কিন্তু, সেই অর্থ এখনও ট্রাভেল সংস্থাকে দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। যদিও এই অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন আজহারউদ্দিন। পাল্টা অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে ১০০ কোটি টাকার মানহানির মামলা করার হুমকি দিয়েছেন প্রাক্তন ক্রিকেটার।

এছাড়াও এফআইআরে সাহাব জানিয়েছেন, মুজিব খানের ঘনিষ্ট সুদেশ আওয়াক্কাল ই-মেলের মাধ্যমে জানিয়েছিলেন ১০.৬ লক্ষ টাকা তাকে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু, সেই টাকা এখনও মেলেনি। নভেম্বরে হোয়াটঅ্য়াপে সাহাবের নামে লেখা একটি চেকের ছবিও সুদেশ তাকে পাঠায় বলে জানান সাহাব। যদিও বাস্তবে সেই চেকেরও কোনও হদিশ মেলেনি।

বুধবার, অরঙ্গাবাদের চক থানায় মহম্মদ আজহারউদ্দিনের সহ তিন জনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেন দানিশ ট্যুর এন্ড ট্রাভেলসের কর্ণধার। তাদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২০ (প্রতারণা), ৪০৬ (বিশ্বাসভঙ্গ) ও ৩৪ (প্রতারণার একই উদ্দেশ্য) ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

তবে তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগকে ‘ভিত্তিহীন’ বলে দাবি করেছেন মহম্মদ আজহারউদ্দিন। একটি ভিডিও প্রকাশ করে অভিযোগ খণ্ডন করেছেন তিনি। আজহারউদ্দিনের কথায়, ‘নজর কাড়তেই এই ভিত্তিহীন অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। আমি অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে ১০০ কোটি টাকার মানহানির মামলা করব।’

এর আগেও মহম্মদ আজহারউদ্দিনের বিরুদ্ধে ক্রিকেট দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। তাঁকে নির্বাসনে পাঠায় বিসিসিআই।