টিডিএন বাংলা ডেস্ক: এবারের বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত একমাত্র অপরাজিত দল ভারত। সব শেষ ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছে হারতে হারতে ১১ রানের জয় ছাড়া অন্য তিন ম্যাচ জিতেছে নিজেদের শক্তির পরিচয় দিয়েই।

৫ ম্যাচের একটির পয়েন্ট ভাগাভাগি ও ৪টিতে জয় নিয়ে অবস্থান করছেন পয়েন্ট টেবিলের ৩ নম্বরে। আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে জয় পায়। এখন পর্যন্ত ৬ ম্যাচ খেলে সেই একটি জয়ই তাদের সান্তনা! আর জয়ের মুখ দেখেনি অগোছালো উইন্ডিজ। মাত্র ৩ পয়েন্ট টেবিলের ৮ নম্বরে রয়েছে গেইলারা।

বিশ্বকাপে প্রায় সবগুলো দলেরই অন্তত ছয়টি করে ম্যাচ খেলা শেষ, বেশিরভাগ দলই খেলে ফেলেছে সপ্তম ম্যাচটিও। শুধু ভারত খেলেছে ৫ ম্যাচ। বাকি আরো চার ম্যাচ। তবে আজ থেকে এক সপ্তাহের ব্যবধানে তিনটি ম্যাচ খেলতে হবে ভারতকে।

সেমিফাইনালে ওঠার জন্য আজকের ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের জয়ের বিকল্প নেই।

যদিও সমীকরণ বলছে প্রায় নিশ্চিত ওয়েস্ট ইন্ডিজের বাদ পড়া। তবু কাগজ ও কলমের হিসেব বলছে বাকি তিনটি ম্যাচের তিনটিতেই জিতলে হয়তো অন্য দলের ব্যর্থতায় সেমিফাইনাল খেলতেও পারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বিশ্বকাপের মাঝপথ পর্যন্ত এক প্রকার নিশ্চিত ছিল ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের সেমিফাইনাল খেলা। তাদের মধ্যে ইংল্যান্ডের টানা দুটো হার এবং নিউজিল্যান্ডের পাকিস্তানের বিপক্ষে হার অনেকটা আশাবাদী করে তুলছে পয়েন্ট টেবিলের নিচের দিকে থাকা বাংলাদেশ, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকে।

তবে পরিসংখ্যানে ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ভারতের মধ্যে পার্থক্য করা কঠিন। দল দুটি মোট ম্যাচ খেলেছে ১২৬টি, যার মধ্যে উন্ডিজের জয় ৬২ আর ভারতের জয় ৫৯ টিতে। দুটি ম্যাচ টাই আর বাকি ৩ ম্যাচ হয় পরিত্যাক্ত।

আবার বিশ্বকাপ ক্রিকেটের দিকে তাকালে ২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ভারতকে হারিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদযাপন করেন। আর তারও বহু আগে ১৯৮৩ বিশ্বকাপ ফাইনালে সে সময়ের শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজকে চমক দিয়ে ভারত জিতে নিয়েছিলো প্রথম বিশ্বকাপ। সামগ্রিকভাবে বিশ্বকাপের মঞ্চে এই দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে ভারত। বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ৮ আর মুখোমুখি দেখায় ভারতের জয় ৫টিতে আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের জয় ৩টিতে।

ভারত ব্যাটিং ও বোলিং মিলিয়ে বিশ্বকাপেরই অন্যতম শক্তিশালী দল। মজবুত উদ্বোধনী জুটি, এরপর বিরাট কোহলি, বিজয় শঙ্কর, এমএস ধোনি। ভারতের প্রধান সমস্যা লোয়ার মিডল অর্ডারের জন্য উপযুক্ত ব্যাটসম্যানরা একটু ওপরের দিকেই আছেন।

অপরদিকে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের সব ব্যাটসম্যানই ফর্মে থাকলেও ঠিক সুর মিলছে না তাদের। ক্রিস গেইল নিজস্ব ভঙ্গিমায় খেলে যাচ্ছেন কিন্তু এখনো প্রত্যাশিত ব্যাটিং তার থেকে পাওয়া যায়নি। শাই হোপ বিশ্বকাপের আগের ফর্ম ঠিক টেনে আনতে পারেননি। শেমরন হেটমায়ারের দিকে তাকিয়ে থাকবে দল।

বোলিং বিভাগেও ভারত এগিয়ে। ভারতের বোলিং লাইন আপের মূল শক্তি বৈচিত্র্য। ভুবনেশ্বর কুমার চোট পেয়ে মাঠের বাইরে, তবে বুমরাহ আর শামি তার অভাব বুঝতেই দিচ্ছেন না আপাতত। আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের মূল বোলার কেমার রোচই এখনো সেভাবে জ্বলে উঠতে পারেনি। তবে নিজের দিনে ব্যাটে বলে যারা এগিয়ে থাকবে জয় পাবে তারাই।