টিডিএন বাংলা ডেস্ক: দক্ষিণ আমেরিকা ফুটবল কনফেডারেশনকে (কনমেবল) দূর্নীতগ্রস্থ বলায় মেসির ওপরে শাস্তির খড়গ নেমে আসবে তা আগে থেকেই বোঝা যাচ্ছিল। ইতোমধ্যে মেসিকে তিন মাস নিষিদ্ধ এবং ৫০ হাজার ডলার জরিমানা করেছে কনমেবল। তার মানে আগামি তিন মাস মেসিকে দেখা যাবে না জাতীয় দলের জার্সি গায়ে দিয়ে ফুটবল মাঠে দর্শকদের মুগ্ধ করতে।

তবে ফুটবলের রাজপুত্র এবং আর্জেন্টাইন কিংবদন্তী ডিয়েগো ম্যারাডোনা বেশ খুশি মেসির এমন প্রতিবাদী রূপ দেখে। কনমেবলকে বাক্যবানে জর্জরিত করায় জুরি নেই ম্যারাডোনার। এবার তার সঙ্গী হিসেবে প্রিয় শিষ্য মেসিকে সাথে পেয়ে খু্বই আনন্দিত ১৯৮৬ বিশ্বকাপ জয়ী এই নায়ক।

সম্প্রতি ‘টিওয়াইসি স্পোর্টস’কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মেসিকে নিয়ে ম্যারাডোনা বলেন, ‘আমি মনে করি সে ছিল ‘মেসি-ম্যারাডোনা’। আমি তাকে বিদ্রোহী রূপে দেখেছি। সে যা অনুভব করেছে তাই বলেছে এবং সে কারো দয়ায় মাঠ জয় করেনি।’

‘আমি এই মেসিকে অনেক বেশি পছন্দ করি- সে তার পরিবারকে সঙ্গ দিচ্ছে, পোষা কুকুরের সঙ্গে খেলা করছে এবং বিয়ার পান করছে। জাতীয় সঙ্গীত না গাওয়ায় যার সমালোচনা করা হয়েছিল সেই মেসির চেয়ে এই মেসি আমার বেশি পছন্দ।’

কনমেবলের সমালোচনা আসলে মেসি আর্জেন্টিনার ভালোর জন্য করেছেন বলে মত ম্যারাডোনার। এজন্যই মেসির মাঝে নিজেকে খুঁজে পাওয়ার কথা জানালেন তিনি, ‘মেসি যা করে তা আর্জেন্টিনার ভালোর জন্যই। তাকে দেখে মনে হয়েছে যেন সে “ম্যারাডোনার মুডে মেসি”।’

একসময় ফিফা ও আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন-এএফএ’র সঙ্গে লড়াই করেছেন ম্যারাডোনা। সেই সময়ের স্মৃতিচারণা করে বিশ্বকাপজয়ী প্রাক্তন এই আর্জেন্টাইন অধিনায়ক বলেন, ‘আমি ২৫ বছর সত্যের পক্ষে ব্ল্যাটার (প্রাক্তন ফিফা প্রধান) ও গ্র্যান্দোনার (প্রাক্তন এএফএ প্রধান) বিপক্ষে লড়াই করেছি। আমি আমার খেলোয়াড়দের স্বার্থ রক্ষা করেছি। এসব করার জন্য আজ আমি দানব হিসেবে পরিচিতি পেয়েছি।’