টিডিএন বাংলা ডেস্ক: এবারের বিশ্বকাপে আগুনে ফর্মে ছিলেন রোহিত শর্মা। কুমার সাঙ্গাকারার করা এক বিশ্বকাপে চার সেঞ্চুরির রেকর্ড ভেঙ্গে করেছেন পাঁচটি সেঞ্চুরি। তার সেঞ্চুরির সুবাদে ভারত ছিলো সেমিফাইনাল লিস্টে প্রথমে। পেয়েছিলো সেমিফাইনালে খেলা সবচেয়ে দূর্বল দল নিউজিল্যান্ডকে। সেই রোহিতের সামনে ছিলো ইতিহাসে জায়গা করে নেয়ার সুবর্ণ সুযোগ। তাও যারতার করা রেকর্ড না, স্বয়ং ক্রিকেট ঈশ্বর শচিন টেন্ডুলকারের। যার দখলে সেঞ্চুরির সেঞ্চুরিসহ ক্রিকেটের প্রায় সব রেকর্ড। সেই শচিনকে ছাড়িয়ে যাওয়া যে কোনো ক্রিকেটারের জন্যই বড় এক প্রাপ্তির বিষয়।

এমন একটি দারুণ সুযোগ ছিল শচিনেরই স্বদেশী ওপেনার রোহিত শর্মার; কিন্তু তিনি সেটা পারলেন না। আজ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ২৭ রান করলেই কোনো এক বিশ্বকাপে শচিনের সর্বোচ্চ ৬৭৩ রানের রেকর্ড ভেঙে শীর্ষে উঠে যেতে পারতেন রোহিত শর্মা। কিন্তু তিনি আজ আউট হলেন মাত্র ১ রানে।

শুধু তাই নয়, একই সঙ্গে কিউইদের কাছে ১৮ রানে হেরে আসর থেকে বিদায় নিয়েছে তার দল ভারতও। ফলে ২০০৩ বিশ্বকাপে গড়া শচিনের রেকর্ড আর ভাঙতে পারলেন না রোহিত। থেমে গেলেন ৬৪৮ রানেই।

চলমান বিশ্বকাপে ৯ ম্যাচে তিনি করেছেন মোট ৬৪৮ রান। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এক আসরে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হতে আর মাত্র ২৬ রান দরকার ছিলো ডানহাতি এই ব্যাটসম্যানের। শুধু তাই নয়, বিশ্বকাপে এক আসরে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের ক্ষেত্রে দ্বিতীয় স্থানে থাকা অস্ট্রেলিয়ার ম্যাথ্যু হেইডেনের ৬৫৯ রানও টপকাতে পারলেন না রোহিত।

তবে, সর্বোচ্চ রানের ক্ষেত্রে না পারলেও আরেকটি রেকর্ডে কিন্তু সবাইকে ছাড়িয়ে গিয়েছিলেন তিনি আগেই। সেটা হচ্ছে এক বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ৫ সেঞ্চুরির রেকর্ড। এর আগে ২০১৫ বিশ্বকাপে টানা চারটি সেঞ্চুরি করেছিলেন কুমার সাঙ্গাকারা।

এবারের বিশ্বকাপে শুরু থেকেই ব্যাট হাতে দুর্দান্ত ধারাবাহিক ছিলেন রোহিত। প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে করেন হার না মানা ১২২ রান। গ্রুপপর্বে পরের ইনিংসগুলো হলো- ৫৭, ১৪০, ১, ১৮, ১০২, ১০৪, ১০৩ রানের।

এক বিশ্বকাপে শচিনের রান ৬৭৩। রোহিতের চেয়ে ২৫ রান বেশি। দক্ষিণ আফ্রিকায় ২০০৩ বিশ্বকাপে এই রেকর্ড গড়েছিলেন ভারতীয় লিটল মাস্টার। স্বদেশিই যদি রেকর্ডটি ভাঙতে পারেন, শচিনের নিশ্চয়ই খারাপ লাগতো না।

শচিনের পর বিশ্বকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় দুই নম্বারে আছেন অস্ট্রেলিয়ার ম্যাথু হেইডেন। ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে মোট ৬৫৯ রান করেছিলেন সাবেক এই অসি ওপেনার।

মঙ্গলবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে রোহিতের ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিলো হেইডেনকে। তাকে ছুঁতে লাগতো আর মাত্র ১১ রান। তারপর কেবল সামনে ছিলে শুধুই শচিন; কিন্তু রোহিত কাউকেই ছাড়িয়ে যেতে পারলেন না।