কিবরিয়া আনসারী, টিডিএন বাংলা, মুর্শিদাবাদ: ওরা পড়াশোনার পাশাপাশি নিজেদের আত্মরক্ষার্থে ক্যারাটেও শিখতো। মুর্শিদাবাদ, ডোমকলের এএমপি জিমনাস্টিক ক্যারাটে একাডেমিতে নিত প্রশিক্ষণ। ক্যারাটে শেখার পাশাপাশি বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশও নিত তারা। সাফল্যও পেয়েছে অনেক। কিন্তু ১৫ ও ১৬ মার্চের চ্যালেঞ্জটা ছিল একটু অন্যরকম। ৩০০র অধিক প্রতিযোগিকে হারিয়ে সাফল্য অর্জন করলো ডোমকলের দুই বোন সাইনা ইসলাম (৯), সানজিনা ইসলাম (৫)।

জানা গিয়েছে, গত ১৫ ও ১৬ মার্চ ‘ওয়াল্টন দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক ক্যারাটে চ্যাম্পিয়ান ২০১৯’ প্রতিযোগিতায় ভারতের হয়ে অংশ নেয় সাইনা ও সানজিনা। নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কা, ভারত, বাংলাদেশেরে ৩০০র অধিক প্রতিযোগী আন্তর্জাতিক ক্যারাটেতে অংশ গ্রহন করেছিলেন। অন্যান্য দেশের প্রতিযোগিদের হারিয়ে ‘কুমি’ ইভেন্টে স্বর্ণপদক লাভ করেন সাইনা ও সানজিনা। এছাড়া সাইনা ইসলাম ‘কাতা’ ইভেন্টে তৃতীয়স্থান অধিকার করে ব্রোঞ্জ পদক লাভ করে।

স্বর্ণপদক লাভ করে সাইনা ইসলাম জানান, শনি ও রবিবার ক্যারাটে শিখতাম। গত ১৫ ও ১৬ মার্চ বাংলাদেশের যশোর জেলায় আন্তর্জাতিক ক্যারাটে প্রতিযোগিতা অংশ গ্রহন করেছিলাম। সেখানে একটি স্বর্ণ পদক ও ব্রোঞ্জের পদক পেয়েছি। তাছাড়াও আমার ছোট বোন একটি স্বর্ণ পদক পেয়েছে। আগামীতে নেপাল কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

সাইনার বাবা বাসিরুল ইসলাম জানান, বাংলাদেশের যশোর জেলায় আন্তর্জাতিক ক্যারাটে প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কা, ভারত সহ অন্যান্য দেশ। বিভিন্ন দেশের ৩০০র অধিক প্রতিযোগিদের হারিয়ে সোনা ও ব্রোঞ্জের পদক লাভ করে আমার দুই কন্যা। আমার খুব ভালো লাগছে। ওরা এখন দেশের গর্ব জেনে ভালো লাগছে।