স্পোর্টস ডেস্ক, টিডিএন বাংলা : ক্রিকেট দিন দিন অলরাউন্ডারের খেলা হয়ে যাচ্ছে। বল হাতে উইকেট নেয়ার পাশাপাশি ব্যাট হাতেও রান করা চাই। এ কারণে আজ শুরু হতে যাওয়া চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে অলরাউন্ডাররা অন্যদের চেয়ে একটু বেশি এগিয়ে থাকবেন। কারণ, একজন পরিপূর্ণ অলরাউন্ডারের ওপর বোলিং বা ব্যাটিংয়ে ভরসা করা যায়। এবারের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির কন্ডিশন বলছে, বেশিরভাগ ম্যাচ হতে পারে বড় স্কোরের। সেখানে স্পিনারদের থেকে ফাস্ট বোলারদেরই এগিয়ে রাখছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। তবে ফাস্ট বোলারদের পাশাপাশি স্পট লাইট নিজেদের দিকে নিয়ে নিতে পারেন অলরাউন্ডাররা। এমনই কয়েকজন অলরাউন্ডার আছেন যাদের প্রতি নজড় থাকবে সবার।
বেন স্টোকস (ইংল্যান্ড) : ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের (আইপিএল) ১০ম আসরে সর্বোচ্চ মূল্যে বেন স্টোকসকে কিনেছিল রাইজিং পুনে সুপারজায়ান্ট। তার মূল্যই প্রমাণ করে বর্তমান ক্রিকেট বিশ্বে স্টোকসকেই কেন অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার বলা হয়! বল ও ব্যাট হাতে বারবার তিনি নিজেকে প্রমাণ করেছেন। সদ্য শেষ হওয়া দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজে দুটিতে খেলেছেন এ বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান ও ডানহাতি পেসার। আর দুই ম্যাচে একটি সেঞ্চুরিসহ ১২৬ রান করেছেন। আইপিএলে এক সেঞ্চুরিতে ৩১২ রান ও ১২ উইকেট নিয়েছেন। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতেও ইংল্যান্ড দলের প্রধান আকর্ষণ থাকবেন স্টোকস।
সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ) : অনেক দিন থেকেই ছন্দে নেই বাংলাদেশের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। সদ্য শেষ হওয়া আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে কিছুই করতে পারেননি এই বাঁ-হাতি স্পিনার। মাত্র একটি ম্যাচে মাঠে দেখা গেছে তাকে। তাই বলে সাকিবের তিন ফরম্যাটের র‌্যাঙ্কিয়ে শীর্ষে থাকা আটকানো যায়নি কোনোভাবেই। ওয়ানডেতে সাকিবের নামের পাশে আছে ৪,৮১৫ রান ও ২২৪টি উইকেট। যদিও ইংল্যান্ডের উইকেট তার জন্য কঠিন হবে। তবুও যেকোনো দলের জন্য তিনি বল বা ব্যাট হাতে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারেন।
হার্দিক পান্ডে (ভারত) : অধিনায়ক বিরাট কোহলির চোখে হার্দিক পান্ডে বর্তমান সময়ের সেরা অলরাউন্ডার। ইংল্যান্ডের উইকেটে ২৩ বছর বয়সী এই ডানহাতি ফাস্ট বোলার ডেথ ওভারে ভারতকে সাহায্য করবে বলেই সবার বিশ্বাস। এছাড়া ব্যাট হাতেও দলকে পথ দেখানোর সামর্থ্য আছে তার।
কোরি অ্যান্ডারসন (নিউজিল্যান্ড) : আইপিলে তেমন কোনো পারফরম্যান্স করেননি নিউজিল্যান্ডের অলরাউন্ডার কোরি অ্যান্ডারসন। এমনকি দলের হয়েও গেলো মৌসুমে ভালো করতে পারেননি তিনি। এছাড়া পুরো মৌসুমেই ইনজুরি তার পিছু লেগেই ছিল। যার ফলে মাত্র ছয়টি ওয়ানডে খেলতে পেরেছেন তিনি। তবে নিউজিল্যান্ডের হয়ে ৪৬টি ওয়ানডেতে ১০৯১ রান ও ৫৭টি উইকেট পাওয়া এই অলরাউন্ডারের দিকও চোখ রাখতে বলছেন বিশেষজ্ঞরা।
ক্রিস মরিস (দক্ষিণ আফ্রিকা) : শুধু ডেথ ওভারের বোলিংই নয়, ব্যাট হাতেও নিজেকে ভালোই চিনিয়েছেন এ দক্ষিণ আফ্রিকান অলরাউন্ডার। গেল মৌসুমে মাত্র ১৩টি ওয়ানডে খেলা এ ক্রিকেটার এরই মধ্যে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের নজরে পড়েছেন। ১৩ ওয়ানডেতে তার রান সংখ্যা ১৪১ ও উইকেট সংখ্যা ১৮টি। অতীতের ব্যার্থতাকে পেছনে ফেলে এবারের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আসরে দক্ষিণ আফ্রিকা দলকে ভালো ফল এনে দিতে বড় ভূমিকা পালন করতে পারেন এ ৩০ বছর বয়সী অলরাউন্ডার।