স্পোর্টস ডেস্ক, টিডিএন বাংলা : আইপিএলের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। চলতি টুর্নামেন্টের শুরুটা ভালোই ছিল। তবে মাঝপথে কিছুটা খেই হারিয়ে ফেলে ডেভিড ওয়ার্নারের দল। যে কারণে প্লে-অফের টিকিট পেতে হায়দরাবাদকে অপেক্ষা করতে হয়েছে গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচ পর্যন্ত।
অপেক্ষার অবসান হলো আজ। বাঁচা-মরার লড়াইয়ে গুজরাট লায়ন্সকে ৮ উইকেটে উড়িয়ে প্লে-অফের টিকিট পেয়ে গেছে হায়দরাবাদ। এই জয়ে পয়েন্ট টেবিলের দুইয়ে উঠে গেছে ওয়ার্নারের দল। ১৪ ম্যাচের চ্যাম্পিয়নদের সংগ্রহ ১৭ পয়েন্ট। এক পয়েন্টে পিছিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স।
কেকেআর একটি ম্যাচ কম খেলেছে। আজই হায়দরাবাদকে ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে গৌতম গম্ভীরের দলের। তার জন্য অবশ্য আজকের দ্বিতীয় ম্যাচে মুম্বাইয়ের বিপক্ষে জিততে হবে। ১৩ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে মুম্বাই।
কানপুরের গ্রিন পার্কে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে গুজরাট লায়ন্স। ডোয়াইন স্মিথ ও ইশান কিশানের ঝড়ে ১৯.২ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৫৪ রান তোলে সুরেশ রায়নার দল। জবাবে ১৮.১ ওভারে (১১ বল বাকি থাকতেই) মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে নোঙর ফেলে হায়দরাদ।
১৫৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ২০ রানের মাথায় শিখর ধাওয়ানকে (১৮) হারিয়ে বিপাকে পড়ে হায়দরাবাদ। দলীয় ২৫ রানের মাথায় ময়েজেস হেনরিকও (৪) ফেরেন সাজঘরে। তৃতীয় উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ১৩৩* রানের জুটি গড়ে দলকে জয় এনে দেন ডেভিড ওয়ার্নার ও বিজয় শঙ্কর। ৫২ বলে ৯টি চারে ৬৯ রানে অপরাজিত থাকেন ওয়ার্নার। ৪৪ বলে ৯টি চারে ৬৩ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন বিজয়।
টস হেরে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা পায় গুজরাট। ওপেনিং জুটিতে আসে ১১১ রান। এই জুটি ভাঙেন রশিদ খান। ৩৩ বলে ৭টি চার ও দুটি ছক্কায় ৫৪ রান করা ডোয়াইন স্মিথকে সাজঘরে ফেরান আফগান এই স্পিনার। ৪০ বল খেলে ইশান কিশান করেন ৬১ রান। কিশানের ইনিংসটি সাজানো ৫টি চার ও চারটি ছক্কায়। তিনি শিকার মোহাম্মদ সিরাজের।
এই দুই ওপেনারের বিদায়ের পর গুজরাটের ইনিংসে নামে ধস। দলটির ব্যাটসম্যানরা ছিলেন আসা-যাওয়ার মিছিলে। স্মিথ-কিশানের পর দুই অঙ্ক ছুঁতে পেরেছেন শুধু রবীন্দ্র জাদেজা। ১৪ বলে দুটি চারে ২০ রানে অপরাজিত থাকেন এই অলরাউন্ডার। বাকিরা তো দুই অঙ্কই ছুঁতে পারেননি।
হায়দরাবাদের সেরা বোলার মোহাম্মদ সিরাজ। ৪ ওভারে ৩২ রান দিয়ে পকেটে পুরেছেন ৪ উইকেট। রশিদ খান নিয়েছেন ৩ উইকেট। ভুবনেশ্বর কুমার নিয়েছেন দুটি উইকেট। আর একটি উইকেট ঝুলিতে জমা করেন সিদ্ধার্থ কাউল।

হায়দরাবাদ একাদশ : ডেভিড ওয়ার্নার (অধিনায়ক), শিখর ধাওয়ান, ময়েজেস হেনরিকস, দিপক হুদা, বিজয় শঙ্কর, মোহাম্মদ নবী, নুয়ান ওঝা, ভুবনেশ্বর কুমার, রশিদ খান, সিদ্ধার্থ কাউল ও মোহাম্মদ সিরাজ।

গুজরাট একাদশ : সুরেশ রায়না (অধিনায়ক),ইশান কিশান, ডোয়াইন স্মিথ, দিনেশ কার্তিক, অ্যারন ফিঞ্চ, রবীন্দ্র জাদেজা, জেমস ফকনার, প্রদীপ, অঙ্কিত সনি, প্রভিন কুমার ও মুনাফ প্যাটেল।