নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, ভাঙড়:
মিলনের বার্তা দিয়ে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার ভাঙড়ে দুই বাংলার কবিদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হল সোমবার। স্থানীয় কবি ছাড়াও কলকাতা ও বাংলাদেশের বেশ কিছু কবি উপস্থিত ছিলেন। মূলত ভাঙড়-১ পঞ্চায়েত সমিতির উদ্যোগে দুই বাংলার কবিদের নিয়ে এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এলাকায় সাহিত্য-সংস্কৃতির বিকাশ অব্যাহত রাখতে এই প্রচেষ্টা বলে জানা গেছে।
ভাঙড়-১ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শাহাজাহান মোল্যা ও ভাঙড়-১ নম্বর অঞ্চলের বিডিও সৌগত পাত্র কবি সম্মেলন সফল করতে বড়ো ভূমিকা নিয়েছেন।
বাংলাদেশের কবি ও সাহিত্যিকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লেখক ও কবি সৈয়দ মাজহারুল পারভেজ এবং প্রিয়মুখ প্রকাশনের প্রকাশক লেখক ও কবি আহমেদ ফারুক, কবি ও ছড়াকার আসলাম সানি, ইমরান পরশ, এম আর মনজু, জেবুন্নেসা মিনা, মোঃ গণি মিয়া, রমজান বিন মোজাম্মেল, হেনা আখতার, হোসনেয়ারা চাপলা, চিন্ময় রায় চৌধুরী, বিধান পুরকাইত, শাহনেওয়াজ পারভীন শান্তি প্রমুখ।
স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন কবি দেবযানী চট্টোপাধ্যায়, ফারুক আহমেদ, আবদুর রব খান, অরূপ বন্দ্যোপাধ্যায়, লালমিয়া মোল্লা, সবিতা দত্ত, মোকতার হোসেন মন্ডল, অভিজিৎ মন্ডল, আবদুস শুকুর খান, তাজিমুর রহমান, সিদ্ধার্থ সিংহ, হরিশঙ্কর কুন্ডু, মিলন মান্নান, রাজু মন্ডল, মিঠুন মন্ডল, প্রবীর রঞ্জন মন্ডল, সুব্রত চক্রবর্তী, তাপস সাহা, মুকুল চক্রবর্তী, সুখেন্দু মজুমদার, মেঘনাথ বিশ্বাস, প্রসোনজিৎ রায়, দুর্গা বেরা, শেখ কামালউদ্দিন, শাহজাহান মন্ডল, , সুজাতা দাস, স্বপন ভট্টাচার্য, অর্চনা দে বিশ্বাস, শ্রীমতী সরস্বতী দাস, রবীন সরকার, মধুমিতা মন্ডল, অশোকা মন্ডল, আবদুর রাজ্জাক, সোনালি রায়, আরফিনা মন্ডল, লিটন রাকিব, মুকন্দ রায়, সাবিনা ইয়াসমিন, দীনবন্ধু পাল, দীননাথ গোলদার, আবদার রহমান প্রমুখ।
ভাঙড় এলাকার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে গুণমুগ্ধ শ্রোতা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাহিত্য ও শিক্ষা অনুরাগী বহু গুণী মানুষ।
কবিদের উত্তরীয়, মেমোন্ট, ফুলের তোড়া, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর কবিতার বই দিয়ে সম্মানিত করা হয়।
সভা সঞ্চলনা করেন ভাঙড়ের অভীক পাল, ভাঙড় কলেজের অধ্যাপক নিরুপম আচার্য ও নজরুল চর্চা কেন্দ্রের কর্ণধার ও অধ্যাক্ষ কামালউদ্দিন আহমেদ।
এদিনের কবি সম্মেলন বিশেষ ভূমিকা পালন করেন ভাঙড়ের ভূমিপুত্র তথা উদার আকাশ পত্রিকার সম্পাদক ফারুক আহমেদ। তাঁকেও বিশেষ সম্মাননা প্রদান করেন ভাঙড়ের বিডিও সৌগত পাত্র।
কবি সম্মেলনে অংশ নিয়ে এক কবি টিডিএন বাংলাকে বলেন, এটা ভালো উদ্যোগ। সাহিত্য ও সংস্কৃতির চর্চা হলে মনের পরিধি বাড়ে, মানুষ সৃজনশীল হয়। তাই প্রতিবার এমন সম্মেলনের আয়োজন করা দরকার।