কৌশিক সালুই, টিডিএন বাংলা, বীরভূম : গ্রামের মোড়লকে মারধরের অভিযোগে থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখালো আদিবাসীরা। ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে বীরভূমের শান্তিনিকেতনে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার শান্তিনিকেতনের বলিপাড়ায় আদিবাসীদের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে গন্ডগোল বাঁধে। সেই সময় ওই এলাকায় উপস্থিত হয় গ্রামের মোড়ল রহিত হাঁসদা এবং শান্তিনিকেতনের মহিলা থানার পুলিশ।

অভিযোগ, রাস্তা থেকে গাড়ি সরানো নিয়ে মোড়লের সাথে শান্তিনিকেতনের মহিলা থানার ওসির বচসা বাঁধে। এরপরই থানার ওসি এবং তার গাড়ির চালক রোহিত হাঁসদাকে মারধর করে। এমনকি রোহিত হাঁসদার বিরুদ্ধে পুলিশ একটি স্বতঃপ্রণোদিতভাবে মামলা রুজু করে। যদিও পুলিশ সেইদিন সাদা পোশাকে ছিল বলে দাবি মোড়লের। তারই প্রতিবাদে সোমবার শান্তিনিকেতন থানার ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখায় আদিবাসীরা। প্রায় ঘন্টা খানেক ধরে চলে এই বিক্ষোভ। পরে পলিশের আশ্বাসে বিক্ষোভ উঠে যায়।

এই বিষয়ে মোড়ল রহিত হাঁসদা জানান, “শনিবার রাতে আমাদের গ্রামের অন্য পাড়ার দিকে একটি গন্ডগোল চলছিল। আমি সেখানে গিয়ে দেখি সেখানে শান্তিনিকেতন মহিলা থানার পুলিশ সাদা পোশাকে রয়েছে। মহিলা থানার ওসি আমাকে আমার গাড়িটা সরাতে বলে। আমি বলি একটু দাঁড়ান সরাচ্ছি। এরপরই থানার ওসি এবং গাড়ির ড্রাইভার আমাকে মারধর করে। এমনকি আমার বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত অভিযোগ দায়ের করে। আমরা তারই প্রতিবাদে আজ থানা ঘেরাও করেছি। আমাদের দাবি আমার বিরুদ্ধে হওয়া মামলা তুলে নিতে হবে।”