টিডিএন বাংলা ডেস্ক: রেল বোর্ডের কমিটির সদস্যপদ পাইয়ে দেওয়ার নামে ৭০ লক্ষ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ উঠল মুকুল ঘনিষ্ঠ এক বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে। ধৃত দক্ষিণ কলকাতার ওই বিজেপি নেতার নাম বাবান ঘোষ। সূত্রের খবর, বাবানের বিরুদ্ধে সরশুনা থানায় ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ দায়ের করেন সন্তু গাঙ্গুলি নামের এক যুবক। ওই এফআইআরের কপিতে মুকুল রায়েরও নাম আছে বলে জানা গিয়েছে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার রাত দেড়টায় ঘুম থেকে তুলে আনা হয় বেহালার শকুন্তলা পার্কের বাসিন্দা বাবান ঘোষকে। দীর্ঘ জেরার পর সকাল সাড়ে ৯ টায় তাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বুধবার বাবানকে আলিপুর আদালতে তোলা হয়। বাবানের আগাম জামিনের জন‍্য বুধবার হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। এবার সেই ঘুষকাণ্ডে আরও একজনকে গ্রেফতার করল পুলিস। ধৃতের নাম সাদ্দাম আলি। অভিযুক্ত সাদ্দাম আলিকে বাবুঘাট থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। প্রাথমিক তদন্তের পর জানা গিয়েছে, ধৃত সাদ্দাম আলি বাবান ঘোষের ঘনিষ্ঠ। বিজেপি নেতা মুকুল রায়েরও ঘনিষ্ঠ এই সাদ্দাম আলি।

মঙ্গলবার গভীর রাতে কার্যত ঘুম থেকে তুলে আনা হয় শকুন্তলা পার্কের বাসিন্দা বাবান ঘোষকে। এরপর রাতভর চলে জেরা। তারপর সকালে গ্রেফতার করা হয় তাঁকে। বাবান ঘোষ বিজেপি জনতা মজদুর ট্রেড ইউনিয়নের রাজ্য সভাপতি। পাশপাশি টলিউডে চালু হওয়া বিজেপি সংগঠনেরও সভাপতি তিনি।

জেরায় বাবান ঘোষ টাকা নেওয়ার কথা কবুল করেছে বলে জানিয়েছে পুলিস। তাঁকে জেরা করেই সাদ্দাম আলির কথা জানতে পারে পুলিস। অতঃপর এই জালিয়াতি চক্রে জড়িত থাকার অভিযোগে সাদ্দাম আলিকে গ্রেফতার করল পুলিস।