কৌশিক সালুই, টিডিএন বাংলা, বীরভূম : আত্মকেন্দ্রিক সমাজে তিনি এক অনন্য উদাহরণ। পথে-ঘাটে দুঃস্থ অসহায় প্রতিবন্ধী প্রভৃতি মানুষদের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়ার ঘটনা নতুন কিছু নয়। কিন্তু এমন এক মানুষকে আমরা পেয়েছি যিনি নিত্যদিন সেই সমস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সেবা করে চলেছেন। তার এই সেবাকে কুর্নিশ জানিয়েছেন সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ।

সেখ রমজান। সবে কৈশোর পেরিয়ে যৌবনে পা দিয়েছেন। বাড়ি বীরভূমের সিউড়ি শহরের ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের তালবোনা এলাকায়। পেশায় তিনি টোটো চালক। বাবা রাজমিস্ত্রির কাজ করেন । তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে সবথেকে বড় সে। বাবার সঙ্গে সংসারের দায়িত্ব ভাগ করে নিতে বছরখানেক আগে টোটো চালানো শুরু করেন তিনি। তার ওই কাজের সঙ্গে সমাজসেবা করে চলেছেন তিনি। প্রতিবন্ধী রোগী দুস্থ অসহায় মানুষকে তাদের গন্তব্যস্থলে পৌঁছে দিতে তিনি কোন ভাড়া নেন না। তার টোটোর গায়ে মোবাইল নাম্বার সহ সেই সাহায্যের কথা লিখে দিয়েছেন তিনি। মাঝেমধ্যে ফোন পেয়ে রোগীকে হাসপাতালে বা চিকিৎসকের কাছে তিনি পৌঁছে দেন। অন্য ভাড়া নিয়ে পথে চলতে চলতে কেউ প্রতিবন্ধী বা দুস্থ অসহায় মানুষ নজরে এলে তিনি তার গাড়িতে তুলে নিয়ে তার ঠিকানায় দিয়ে আসেন। অথচ বর্তমান সমাজে কেউ হঠাৎ কেউ দুর্ঘটনায় পড়লে বা রাস্তাঘাটে অসুস্থ হয়ে পড়লে সকালে আমরা মুখ ফিরিয়ে নিয়ে চলে যায়। সেখানে রমজানের এই কর্মপদ্ধতি সমাজে এক অন্য বার্তা দেয়। সেখ রমজান বলেন, “যেদিন টোটো কিনে ছিলাম সেদিন মনস্থির করেছিলাম রাস্তায় গাড়ি বের করব শুধু নিজের রোজগারের জন্য নয় সমাজের জন্য কিছু করতে চাই। সেই মত আমি নিয়মিত রোগীদের পাশাপাশি দুস্থ অসহায় প্রতিবন্ধী মানুষদের বিনা পয়সায় তার গন্তব্যে পৌঁছে দিয়ে আসি”।