টিডিএন বাংলা ডেস্ক কবিতা মানে দৃপ্ত শপথ,

পদক্ষেপের ঝড়-তুফান

— কবিতার উৎসবের দৃপ্ত পদধ্বনি শোনা যাচ্ছে বেশ কয়েক বছর ধরে। এবারও সেই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে রবীন্দ্রসদনে শুরু হল কবিতা উৎসব।

পশ্চিমবঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চেয়েছিলেন কবিতাকে ঘিরে উৎসব হোক। সেই তাগিদে তৈরি হয় কবিতা অ্যাকাদেমি। পশ্চিমবঙ্গ বাংলা অ্যাকাদেমির উদ্যোগে শুরু হল কবিতা উৎসব, ২০১৯।

শনিবার ২৩ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৫.৩০ মিনিটে বাংলা ভাষার সব থেকে বড়ো কবিতা উৎসব উদ্বোধন করলেন ইতিহাসবিদ ও অধ্যাপক সুগত বসু।

প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, বিশেষ অতিথির আসনে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন। সমগ্র অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন কবি সুবোধ সরকার। তিনিই পশ্চিমবঙ্গ কবিতা অ্যাকাদেমির সভাপতি।

কবি ও উদার আকাশ পত্রিকার সম্পাদক ফারুক আহমেদকে পশ্চিমবঙ্গ কবিতা অ্যাকাদেমির পক্ষ থেকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। আমন্ত্রণ গ্রহণ করে কবি ফারুক আহমেদ উপস্থিত হয়েছিলেন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে।

পশ্চিমবঙ্গ সরকারি উদ্যোগে আয়োজিত এই কবিতা উৎসবে কবিতা পাঠের জন্য কবি ফারুক আহমেদকে লিখিত আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। সেই কারণে তিনি এসেছিলেন।

২৬ ফেব্রুয়ারি কবিতা উৎসবের শেষ দিন বিশিষ্ট কবিদের সঙ্গে শিশির মঞ্চে সন্ধ্যায় কবিতা পড়বেন কবি ফারুক আহমেদ। তাঁকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ কবিতা অ্যাকাদেমির পক্ষ থেকে।

কবি ও সম্পাদক ফারুক আহমেদ এক বিবৃতি দিয়ে সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, সরকারি উদ্যোগে সাংস্কৃতিক উৎসবে কবিতা পাঠের জন্য  আমন্ত্রণ জানানোয় তিনি মুগ্ধ হয়েছেন। তাঁকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য তিনি কৃতজ্ঞ সরকারের কাছে। তিনি সরকারি উদ্যোগে এই সাহিত্য ও কবিতা উৎসবের সার্বিক সাফল্য কামনা করেছেন।

এবছর কবিতা উৎসবে শহরের কবিদের পাশে জেলার বহু কবিকে কবিতা পাঠে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

পাঁচটি সভাগৃহে চারদিন ধরে পাঁচ শতাধিক অংশগ্রহণকারী কবিতা পড়বেন-এ এক অভূতপূর্ব কবিতা উৎসব।

জঙ্গল মহলের কবিরা কবিতা পড়বেন নন্দনে। পাশাপাশি বাংলায় অ্যালেন গিনসবর্গের প্রভাব নিয়ে আলোচনা হবে। আছে বুদ্ধদেব বসুর অনুবাদ পৃথিবী, সুভাষ, নীরেন, সমরের পাশাপাশি রাজবংশী কবিদের কবিতা উৎযাপন।

অনেক কবি ও আবৃত্তিকাররা নতুনদের জায়গা করে দিয়েছেন। বিজয়লক্ষী বর্মণ নিজে সরে গিয়ে একজনকে সুযোগ করে দিয়েছেন, তবু তিনি রোজ আসবেন এবং শিশির মঞ্চ সামলাবেন।

নন্দন ও রবীন্দ্র সদন চত্বর যেভাবে কবিতাময় সেজে উঠছে — সেটাও অভূতপূর্ব  শিল্প নিদর্শন। জানিয়েছেন, কবি সুবোধ সরকার।

এই মুহূর্তে গোটা পৃথিবীর কবিদের কাছে বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ কবিতা অ্যাকাদেমি। ২৩ থেকে ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ এই চারদিন পশ্চিমবঙ্গ কবিতা আকাদেমির উদ্যোগে বিশাল কবিতা উৎসব আয়োজিত হয়েছে কলকাতার রবীন্দ্রসদনে।

গত বছর কবিতা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছিল ৪ থেকে ৬ মার্চ। কবিতা উৎসবের শুভ সূচনায় উপস্থিত ছিলেন কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইন্দ্রনীল সেন, উজ্জ্বল উপস্থিতি ছিল বহু কবি ও সাহিত্যিকদের। উদ্বোধনের দিন কবিতার গান করে মাতিয়ে দিয়েছিলেন প্রতুল মুখোপাধ্যায়। উপস্থিত ছিলেন কবি জয় গোস্বামী।

উৎসবের বিভিন্ন দিনে অ্যাকাদেমি প্রবর্তিত স্মারক আলোচনা, ম্মারক সম্মান, কবিতার গান, কীর্তন, কাব্যনাট্য পাঠ, সম্মেলক, কথাবিন্যাস, কবিতা কনসার্ট, স্ট্রিম কনসার্ট সহ আলোচনাসভা, কবিতাপাঠ এবং প্রাসঙ্গিক বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে যা সকলকেই মুগ্ধ করবে। এমনটা বললেন পশ্চিমবঙ্গ কবিতা অ্যাকাদেমির সভাপতি কবি সুবোধ সরকার।