টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বাংলা ক্যালেন্ডার বলছে, আজ সবে ২ বৈশাখ। বসন্তের শেষে শীতের অনুভূতি স্বস্তি দিয়েছিল। কিন্তু বৈশাখ আসতেই গরমে নাভিশ্বাস অবস্থা। এদিকে ভরা ভোটের মরসুম। দিন রাত এক করে প্রচারে ব্যস্ত নেতারা। দ্বিতীয় দফা ভোটের আগে আজ প্রচারের শেষদিন। চিকিৎসকরা বলছেন, সকালেই প্রচার সেরে নিলে ভালো। খুব প্রয়োজন না হলে তাঁরা ভর দুপুরে বেরোতে বারণ করছেন। এই প্রবল তাপে সানস্ট্রোক সহ আরো নানা ধরণের সমস্যা মাথাচাড়া দিতে পারে। তাই ডাক্তাররা বারবার সাবধানতা অবলম্বন করতে বলছেন। বিশেষ করে হালকা খাবার খাওয়া ও বারেবারে ঠাণ্ডা পানীয় খেতে হবে।

সোমবার দুপুরে বর্ধমান শহরে তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি ঘোরাফেরা করে। কলকাতার পারদ ছিল ৩৫.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আসনসোলে পারদ ছিল ৪০.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মঙ্গলবার চড়া রোদের প্রকোপে পারদ আরো চড়তে থাকে। আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা গণেশকুমার দাস জানান, মরশুমের উষ্ণতম দিনটি সাধারণত এপ্রিল মাসেই হয়ে থাকে। সেই হিসেবে এখন প্রকৃতই উষ্ণ সময়। কলকাতা যেহেতু উপকূলবর্তী এলাকা হওয়ায় এখানকার আর্দ্রতা বেশি। অধিকর্তার কথায়, এখানে বাতাসে জলীয় বাষ্প বেশি থাকায় অস্বস্তি আরও বেশি করে হয়। এখানে পারদ ৩৫.৬ ডিগ্রি থাকলেও, ৪০ ডিগ্রি ছুঁইছুঁই অনুভূতি হয়।
তার উপর শহরে দু’দিন বৃষ্টি হয়নি। সব মিলিয়ে পরিস্থিতি ঘোরালো। তবে বৃষ্টি কি হবে না? অধিকর্তার আশ্বাস, কালবৈশাখীর সবরকম উপকরণ মজুত আছে। মঙ্গলবার যদি নাও হয়, তাহলে বুধ বা বৃহস্পতিবার শহরে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে গরম থেকে সামান্য নিস্তার মিলবে বলে আশা জুগিয়েছেন তিনি।