টিডিএন বাংলা ডেস্ক: গত ৭ নভেম্বর এক দলিত যুবককে একটি থামে বেঁধে লাঠি এবং রড দিয়ে বেধড়ক পিটিয়েছিল চার জন মিলে। এমনকি তাঁকে জোর করে তাঁর নিজেরই মূত্র পান করতেও বাধ্য করা হয়েছিল। ৮ দিন ধরে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করার পর অবশেষে পরাজিত হলেন ৩৭ বছরের দলিত যুবক জগমেল সিংহ। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে পঞ্জাবের সংরুপুর এলাকায়। শনিবার সকালে তাঁর মৃত্যু সংবাদ ঘোষণা করে পোস্ট গ্র্যাডুয়েট ইন্সটিটিউট অব মেডিক্যাল এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ (পিজিআইএমইআর)।

সূত্রের খবর, পুরনো শত্রুতার জেরে গত শনিবার সংরুপুর এলাকার চঙ্গলিওলা গ্রামের ওই যুবককে বাড়ি থেকে বার করে আনে স্থানীয় দুই যুবক রিঙ্কু ও বিটা। তাদের সঙ্গে যোগ দেয় লাকি ও অমরজিৎ সিংহ নামে দু’জন। একটি থামে বেঁধে লাঠি এবং রড দিয়ে তাঁকে প্রচণ্ড মারধর করা হয়। যন্ত্রণায় কাতর জগমেল জলের জন্য কাকুতি জানালেও জল দেওয়া হয়নি তাঁকে। বরং বাধ্য করা হয়েছে নিজের মূত্র পান করাতে। পরে তাঁকে পিজিআইএমইআর-এ ভর্তি করা হয়। তাঁর পা দু’টি বাদ দেন চিকিৎসকরা। ক্রমেই জগমেল সিংহ সাড়া দেওয়া বন্ধ করেন।

জগমেলের অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত চার যুবককেই গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০২ (হত্যা), ৩৬২ (অপহরণ) ও অন্য বেশ কয়েকটি ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। পঞ্জাবের তপসিলি জাতি ও জনজাতি কমিশনের তরফে সংরুপুর থানায় গোটা ঘটনার রিপোর্ট চেয়ে পাঠানো হয়েছে।