নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: ক‍্যারাটেতে তিন তিনবার দেশকে সোনা এনে দিয়েছেন তিনি। তারপরেও কেন্দ্র বা রাজ‍্য সরকারের পক্ষ থেকে এখনও পর্যন্ত কোনো সংবর্ধনা বা সম্মান মেলেনি। বদলে সরকারের তরফে পেয়েছেন শুধু একগুচ্ছ অবহেলা। তার দুঃসাহসিকতা ও অসামান্য অবদানের জন্য অনেক আগে সম্মানিত করেছিল খোদ আমেরিকা সরকার। এর পর টাইমস অফ ইন্ডিয়া সহ দেশের প্রথম সারির সংবাদ মাধ্যমও পুরস্কৃত করেছিল তাকে। তিনি আর কেউ নন, তিনি হলেন কলকাতার বেনিয়াপুকুরের একটি বস্তির অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারের মেয়ে আয়েশা নূর। এবার সেই আয়েশা নুরকে ‘স্বয়ং সিদ্ধা’ পুরস্কার দিল রাজ‍্যের প্রথম সারির খবরের চ্যানেল জি ২৪ ঘন্টা। শুক্রবার বাইপাশের একটি পাঁচতারা হোটেলে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ক্যারাটে কন্যা আয়েশাকে ওই সংবাদ চ্যানেলের তরফে ‘স্বয়ং সিদ্ধা’ পুরস্কার দেওয়া হয়। এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, অভিনেত্রী অভিনেতা সাহেব চট্টোপাধ্যায়, অভিনেত্রী কোয়েল মল্লিক, মনামী ঘোষ,অমৃতা চট্টোপাধ্যায়, তন্ময় সাহা, কোচ এমএ আলি ও আয়েশার মা শাকিলা খাতুন। আগামীকাল ২৮ শে জুলাই আয়েশা কে আরও একটি সংবর্ধনা দেবেন রাজ‍্যের প্রাক্তন মন্ত্রী মদন মিত্র।

এই সম্মান পেয়ে আপ্লুত আয়েশা। তিনি বলেন, ‘আমার এই উত্থানের পেছনে যাঁদের অবদান রয়েছে প্রত্যেককে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে আমার এই পুরস্কার তাঁদের সমর্পণ করছি’। এছাড়া বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য জি ২৪ ঘন্টার তরফে একই সম্মান দেওয়া হয় অভিনেত্রী কোয়েল মল্লিক, গায়িকা আরতি মুখোপাধ্যায়, ডান্সার তনুশ্রী শঙ্কর, নাট্যকার সোহাগ সেন, সাহিত্যিক বাণী বসু, শ্যুটার মেহুলি ঘোষকে।

তবে অনুষ্ঠানের মূল কেন্দ্রে অবশ্যই ছিলেন আয়েশা। যাঁকে পাশে পেয়ে খুশি হয়েছেন স্বয়ং অভিনেত্রী কোয়েল মল্লিক সহ উপস্থিত বিশিষ্টরা। আয়েশাকে সামনে পেয়ে সেলফি তোলার হিড়িক পড়ে যায় অনুষ্ঠান মঞ্চেই। কোয়েল মল্লিক, সাহেব চট্টোপাধ্যায়, ফিল্ম নির্দেশক ধ্রুব ব্যানার্জি সহ সকলেই ঝাঁপিয়ে পড়েন আয়েশার সঙ্গে সেলফি তোলার জন্য। আগামীকাল রবিবার ‘ক্যারাটে কন্যা’ আয়েশাকে সংবর্ধনা দেবেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী মদন মিত্র। বেলগড়িয়া স্টেডিয়ামে তিনি আয়েশাকে সংবর্ধনা দেবেন বলে জানিয়েছেন আয়েশার কোচ এমএ আলি।

কলকাতার বেনিয়াপুকুরের একটি বস্তির দরিদ্র পরিবারের মেয়ে আয়েশা নূর। বিশ্ব ক্যারাটে প্রতিযোগিতায় ইতিমধ্যে তিন তিনবার দেশকে সোনা উপহার দিয়েছেন তিনি। শুধু তাই নয়, ২০১৩ সালে দিল্লির নির্ভয়া কান্ডের পর কলকাতার বস্তির মেয়েদের কথা ভেবে কেঁদে উঠেছিল তাঁর হৃদয়। প্রতিজ্ঞা নিয়েছিলেন কলকাতার বস্তি এলাকার কোনও মেয়েরই সর্বনাশ হতে দেবেন না। কোনও মা-বাবাকেই যেন নির্ভয়ার মা-বাবার মতো চোখের জল ফেলতে দেবেন না। সেই প্রতিজ্ঞা পূরণে বস্তির মেয়েদের ক্যারাটে প্রশিক্ষণ দেওয়াকেই হাতিয়ার করেন আয়েশা। ওই বছর থেকেই রামলীলা পার্কে বস্তির মেয়েদের নিখরচায় শুরু করেন ক্যারাটে প্রশিক্ষণের কাজ। এর পর ক্যারাটে কোচিং শুরু হয় রাজাবাজার, তালতলা সহ কলকাতার পার্শ্ববর্তী এলাকাতেও। টার্গেট নেন এক লক্ষ মেয়েকে ক্যরাটে শিক্ষা দেবেন। আয়েশার সেই স্বপ্ন আজ সফল। এখনও পর্যন্ত শহরের এক লক্ষেরও বেশি মেয়েকে ক্যারাটে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। আয়েশার এই উদ্যোগকেই সম্মান জানিয়েছে আমেরিকা সরকার।

ইতিমধ্যে আয়েশাকে সে দেশের সরকারের তরফে ‘ ‘দ্যা হিরো অফ জেন্ডার ইকুয়ালিটি’ সম্মানে ভূষিত করা হয়েছে। আয়েশার এই কৃতিত্বকে সম্মান জানিয়ে ছিলেন দেশের প্রাক্তন নারী ও সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী মানেকা গান্ধীও। আয়েশার উদ্দেশ্যে টুইটারে তিনি লিখেছিলেন, ‘বীর নারী তুমি সকলের অনুপ্রেরণা’। এরপর দেশের প্রথম সারির ইংরেজি দৈনিক দ্য টাইমস অফ ইন্ডিয়া সহ একাধিক সংস্থা সম্মানিত করেছে আয়েশাকে।

এবার আয়েশাকে পুরস্কৃত করল রাজ্যের অন্যতম জনপ্রিয় খবরের চ্যানেল ‘জি ২৪ ঘন্টা’। রাজ্যের প্রথম সারির খবরের চ্যানেলের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন আয়েশার কোচ এমএ আলি। তিনি বলেন, ‘সংবাদ মাধ্যমই আয়েশাকে এই জায়গায় নিয়ে গিয়েছে। সংবাদ মাধ্যমের সমস্ত বন্ধুকে স্যালুট জানাই। কারণ মিডিয়ার জন্যই আয়েশার নাম আমেরিকা পর্যন্ত পৌঁছেছে। যার ফলস্বরূপ আমেরিকা সরকার আয়েশাকে সম্মানিত করেছে। সেই সঙ্গে ‘দ্য গার্ল কানেকটেড’ নামে তথ্যচিত্র নির্মাণ করেছে সেদেশের একটি সংস্থা। পাশাপাশি এমএ আলি এও জানিয়েছেন, ‘যত দিন পর্যন্ত দেশে ধর্ষণ বন্ধ না হবে ততদিন আমি যুদ্ধ চালিয়ে যাব। রাজ্য ও কেন্দ্র সরকার আয়েশার পাশে দাঁড়ালে খুশি হব’।

এদিনের অনুষ্ঠানে বিশিষ্টদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গায়ক কুমার শানু, লেখক স্বপ্নময় চক্রবর্তী সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের তারকা ব্যক্তিত্বরা।